Sports

হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে সৌরভ, হল অ্যাঞ্জিওপ্লাস্টি

সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হন শনিবার সকালে। তাঁর অ্যাঞ্জিওপ্লাস্টি করা হয়েছে। খোঁজ নিলেন মুখ্যমন্ত্রী ও অমিত শাহ।

কলকাতা : সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি। খবরটা শনিবার অনেকেই শোনার পর প্রথমে বিশ্বাসও করতে চাননি। অনেকেই টিভি বা ইন্টারনেট খুলে খবর নেওয়ার চেষ্টা করেন।

সৌরভ এদিন সকালে জিমে শরীরচর্চা করছিলেন। সে সময় আচমকাই তাঁর ব্ল্যাক আউট হয়। সব অন্ধকার হয়ে যায় চোখের সামনে।

দ্রুত তাঁকে উডল্যান্ডস হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে প্রথমেই তাঁকে আইসিইউ-তে নিয়ে যাওয়া হয়। চিকিৎসকেরা তাঁকে পরীক্ষা করে দেখেন।

সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় হাল্কা হৃদরোগে আক্রান্ত হয়েছেন। একথা জানান চিকিৎসকেরা। মুখ্যমন্ত্রীও ট্যুইট করে একথা জানান। সৌরভের দ্রুত আরোগ্য কামনা করেন তিনি।

এ ধরনের সমস্যা সাধারণত প্রবল স্ট্রেস থেকে হতে পারে বলে মনে করছেন চিকিৎসকেরা। এদিন দুপুরেই সৌরভের অ্যাঞ্জিওপ্লাস্টি করা হয়। তাঁর ইসিজি রিপোর্টে সামান্য সমস্যা পাওয়া যায়। তারপরই তাঁর অ্যাঞ্জিওপ্লাস্টি করার সিদ্ধান্ত নেন চিকিৎসকেরা।

হাসপাতালে হাজির ছিলেন সৌরভের স্ত্রী ডোনা গঙ্গোপাধ্যায়, মেয়ে সানা এবং দাদা স্নেহাশিস গঙ্গোপাধ্যায়। এদিকে সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের খোঁজ নিতে ফোন করেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ।

সৌরভের সমসাময়িক অনেক খেলোয়াড় সহ বীরেন্দ্র সেহওয়াগরা ট্যুইট করে তাঁর আরোগ্য কামনা করেন, তেমনই বিরাট কোহলির মত বর্তমান যুগের খেলোয়াড়ও তাঁর আরোগ্য কামনা করে ট্যুইট করেন।

সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় এখন বিসিসিআই প্রেসিডেন্ট। ৪৮ বছরের সৌরভ আরও নানা কিছুর সঙ্গে যুক্ত। যেমন রয়েছে বিজ্ঞাপন, টিভি শো এবং আরও অনেক কিছু।

করোনার সময় তাঁকে সেবামূলক কাজ করতেও দেখা যায়। এত চাপ তাঁর এদিনের পরিস্থিতির কারণ বলে মনে করছেন অনেকেই।

এদিকে সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় এখন কেমন আছেন এটাই সকলের প্রশ্ন। চিকিৎসকেরা আশ্বস্ত করেই জানিয়েছেন এখনই উদ্বেগের কিছু নেই। পরীক্ষা শুরু হয়েছে। সেই পরীক্ষার ফল ধরে এগোবে চিকিৎসা। অবস্থা স্থিতিশীল বলেই জানিয়েছেন তাঁরা।

এদিন সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার খবরে উদ্বিগ্ন গোটা ক্রিকেট মহল। অনেকেই ফোন করে খবর নেওয়ার চেষ্টা করেন সৌরভ কেমন আছেন।

Show More

One Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button