Indian Premier League 2017

ব্যাটিং, বোলিং, ফিল্ডিং, ৩ বিভাগেই মাথা হেঁট করল কেকেআর

আত্মবিশ্বাস ভাল। কিন্তু অতিরিক্ত আত্মবিশ্বাস পতন ডেকে আনে। যা হল কলকাতার। যা হল গৌতম গম্ভীরের। তুলনামূলকভাবে মুম্বই কতটা পেশাদারী দল তা এদিন প্রমাণ হয়ে গেল। যেখানে আগের রাতেই নিশ্চিত হারের অবস্থায় পৌঁছনো মুম্বই দলটা শেষটুকু নিংড়ে দিয়ে সুপার ওভারে গুজরাটকে পর্যুদস্ত করে নিজেদের মান ধরে রাখল। সেখানে এদিন কেকেআর জঘন্য ফিল্ডিং, জঘন্য বোলিং, আর সবশেষে জঘন্য ব্যাটিংয়ের প্রদর্শন করে বুঝিয়ে দিল আসলে লাগলে তাক, না লাগলে তুকের আপ্ত বাক্য মেনে চলছে শাহরুখের ছেলেরা। কোনও মান নেই। কোনও ধারাবাহিকতার বালাই নেই। কেউ কোনও দিন দাঁড়িয়ে গিয়ে ম্যাচ জিতিয়ে দিল তো ভাল, না হলে গো হারান হার। আদপে যে মুম্বইয়ের সঙ্গে তাদের ধারাবাহিকতার ও খেলার মানের পার্থক্য আছে তা এদিন চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিলেন গম্ভীর, নারিন, নাইল, উত্থাপ্পারা। সহজ উইকেটে কেকেআর টস জিতেও ব্যাট না করে বল করার সিদ্ধান্তকে চরম ভুল সিদ্ধান্ত বলেই মেনে নিচ্ছেন ক্রিকেট বিশেষজ্ঞেরা। ব্যাট করতে নেমে মারমুখী ওয়ার্নারের শুরুতেই ক্যাচ ফস্কায় কলকাতা। আর সেটাই ম্যাচের টার্নিং পয়েন্ট হয়ে যায়। ২০ বলে ৫০ রান, ৪৭ বলে শতরান পূর্ণ করা। এমনই বিধ্বংসী ইনিংস এদিন উপহার দিলেন ওয়ার্নার। মাঠে চার, ছয়ের বন্যা বইয়ে দলকে পৌঁছে দিলেন ২০০ রানের ওপরে। নিজে গড়লেন ৫৯ বলে ১২৬ রানের একটা স্বপ্নের ইনিংস। দুশোর ওপর  রান প্রথমে ব্যাট করে করা গেলেও, তাড়া করে জেতা প্রায় অসম্ভব। ২০ ওভারে ২০৯ রানে ইনিংস শেষ করে কলকাতাকে তৃতীয় হারের বার্তা স্পষ্ট করে দেয় ওয়ার্নারের হায়দরাবাদ। রান তাড়া করতে নেমে শুরুতেই প্যাভিলিয়নে ফেরেন নারিন। এত বড় রান তাড়া করতে গেলে অধিনায়ককে হাল ধরতে হয়। কিন্তু চাপের মুখে গম্ভীরকে খুঁজে পাওয়া যায় না বলে একটা কথা ক্রিকেট মহলে ফিসফাস করে। এদিন ফের সেটা একবার প্রমাণ হল। অত্যন্ত অবিবেচক শট খেলে আউট হয়ে প্যাভিলিয়নমুখী হলেন অরেঞ্জ ক্যাপের আপাতত মালিক গম্ভীর। এরপর বৃষ্টি নামল মাঠে। বৃষ্টি ম্যাচ মাটি করুক এটাই তখন কেকেআর সমর্থকদের একমাত্র প্রার্থনা। অন্যদিকে হায়দরাবাদ অঙ্ক কষছে কলকাতার রান রেট ঠিক কত দাঁড়াবে সেটা ঠিক করতে। সওয়া ১১টা নাগাদ ফের শুরু হয় খেলা। কিছুক্ষণের মধ্যেই আউট হয়ে প্যাভিলিয়নে ফেরেন মণীশ পাণ্ডে। ৫৩ রানে সহজ ক্যাচ তুলে আউট উত্থাপ্পা। উত্থাপ্পা আউটের সঙ্গে সঙ্গেই কার্যত সামান্য যেটুকু রান তাড়ার আশা ছিল তাও জলে যায় কেকেআরের। এরপর একে একে পাঠান, জ্যাকসন প্যাভিলিয়নমুখী হওয়ার পর কলকাতা জেতার চেষ্টা ছেড়ে খেলা শেষ হওয়ার অপেক্ষা করতে থাকে। শেষ বলে ক্যাচ তুলে আউট হন গ্র্যান্ডহোম। অবশেষে ১৬১ রান করে শেষ হয় ২০ ওভার। ৪৮ রানে ঘরের মাঠে কেকেআরকে হারায় হায়দরাবাদ। এদিনের ম্যাচে ওয়ার্নারের ইনিংস ইতিহাস হয়ে রইল।

About News Desk

Check Also

Indian Premier League 2017

নারিন-লিনের ব্যাটিং তাণ্ডব, হেরে হাঁফ ছেড়ে বাঁচল বিরাট বাহিনী!

ছেড়ে দে মা কেঁদে বাঁচি! এদিন কলকাতার দুই ওপেনার ক্রিস লিন ও সুনীল নারিনের পাশবিক ব্যাটিংয়ের চোটে মাঠে সেই দশাই হয়েছিল বিরাটদের।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *