Wednesday , April 25 2018
Hanuman Chalisa

বাংলায় হনুমানচালীসা

দোঁহা

শ্রীগুরু চরণ সরোজ রোজ
নিজ মনু মুকুরু সুধারি।

বরনউ রঘুবির বিমল জসু
জো দায়কু ফল চারি।।

বুদ্ধিহীন তনু জানিকে
সুমিরৌ পবন-কুমার।

বল বুধি বিদ্যা দেহুমোহি
হরহুকলেস বিকার।।

চৌপাঈ

জয় হনুমান জ্ঞান গুণ সাগর।
জয় কপিস তিহুঁ লোক উজাগর।। ১

রাম দূত অতুলিত বল ধামা।
অঞ্জনি-পুত্র পবনসুত নামা।। ২

মহাবীর বিক্রম বজরঙ্গী।
কুমতি নিবার সুমতি কে সঙ্গী।। ৩

কঞ্চন বরণ বিরাজ সুবেসা।
কানন কুণ্ডল কুঞ্চিত কেশা।। ৪

হাথ বজ্র ঔ ধ্বজা বিরাজৈ।
কাঁধে মুঁজ জনেজ সাজৈ।। ৫

সঙ্কর সুবন কেসরীনন্দন।
তেজ প্রতাপ মহা জগ বন্দন।। ৬

বিদ্যাবান গুণী অতি চাতুর।
রাম কাজ করিবে কো আতুর।। ৭

প্রভু চরিত্র সুনিবেক রসিয়া।
রাম লখন সীতা মন বসিয়া।। ৮

সুক্ষ্ম রূপ ধরি সিয়হিঁ দিখাবা।
বিকট রূপ ধরি লঙ্কা জরাবা।। ৯

ভীম রূপ ধরি অসুর সঁহারে।
রামচন্দ্র কো কাজ সঁবারে।। ১০

লায় সজীবন লখন জীয়ায়ে।
শ্রীরঘুবীর হরষি উর লায়ে।। ১১

রঘুপতি কীন্‌হী বহুত বড়াঈ।
তুম মম প্রিয় ভরতহি সম ভাঈ।। ১২

সহস বদন তুমহরো জস গাবৈঁ।
অস কহি শ্রীপতি কন্ঠ লগাবৈঁ।। ১৩

সনকাদিক ব্রহ্মাদি মুনীসা।
নারদ সারদ সহিত অহীসা।। ১৪

যম কুবের দিগপাল জঁহা তে।
কবি কোবিদ কহি সকে কহাঁ তে।। ১৫

তুম উপকার সুগ্রীবহিঁ কীন্‌হা।
রাম মিলায়ে রাজ পদ দীনহা।। ১৬

তুম্‌হারো মন্ত্র বিভীষণা মানা।
লঙ্কেশ্বর ভএ সব জগ জানা।। ১৭

জগু সহস্র যোজন পর ভানু।
লীল্যো তহিঁ মধুর ফল জানু।। ১৮

প্রভু মুদ্রিকা মেলি মুখ মাহী।
জলধি লাঁঘি গয়ে অচরজ নাহী।। ১৯

দুর্গম কাজ জগতকে যেতে।
সুগম অনুগ্রহ তুমহারে তেতে।। ২০

রাম দুআরে তুম রখবাড়ে।
হোত ন আজ্ঞা বিনু পৈসারে।। ২১

সব সুখ লহৈ তুমহারী সরনা।
তুম রচ্ছক কাহু কো দর না।। ২২

আপন তেজ সমহারো আপৈ।
তীনোঁ লোক হাঁক তেঁ কাপৈ।। ২৩

ভূত পিশাচ নিকট নহিঁ আবৈ।
মহাবীর জব নাম সুনাবৈ।। ২৪

নাসৈ রোগ হরৈ সব পীড়া।
জপত নিরন্তর হনুমত বীরা।। ২৫

সংকট তে হনুমান ছুড়াবৈ।
মন ক্রম বচন ধ্যানে জো লাবৈ।। ২৬

ঔর মনোরথ জো কোই লাবৈ।
সোই অমিত জীবন ফল পাবৈ।। ২৮

চারোঁ যুগ পরতাপ তুম্‌হারা।
হৈ পরসিদ্ধ জগত উজিয়ারা।।২৯

সাধু সন্ত কে তুম রঘবারে।
অসুর নিকন্দন রাম দুলারে।। ৩০

অষ্ট সিদ্ধি নৌ নিধি কে দাতা।
অস বর দীন জানকী মাতা।। ৩১

রাম রসায়ন তুম্‌হরে পাসা।
সদা রহো রঘুপতি কে দাসা।। ৩২

তুম্‌হরে ভজন রাম কো পাবৈ।
জনম জনম কে দুঃখ বিসরাবৈ।। ৩৩

অন্ত কাল রঘুবর পুর জাই।
জহাঁ জন্ম হরি-ভক্ত কহাঈ।। ৩৪

ঔর দেবতা চিত্ত ন ধরঈ।
হনুমত সেই সর্ব সখ করঈ।। ৩৫

সঙ্কট কটে মিটে সব পীরা।
জো সুমিরৈ হনুমত বলবীরা।। ৩৬

জৈ জৈ জৈ হনুহান গোসাঈঁ।
কৃপা করহু গুরু দেব কী নাঈ।। ৩৭

জো সত বার পাঠ কর কোঈ।
ছুটহি বন্দি মহা সুখ হোঈ।। ৩৮

জো য়হ পঢ়ৈ হনুমান চলীসা।
হোয় সিদ্ধি সাখী গৌরীসা।। ৩৯

তুলসীদাস সদা হরি চেরা।
কীজৈ নাথ হৃদয় মহঁ ডেরা।। ৪০

দোঁহা

পবনতনয় সংকট হরন, মঙ্গল মূরতি রূপ।
রাম লখন সীতা সহিত, হৃদয় বসহু সুর ভূপ।।



About Sibsankar Bharati

স্বাধীন পেশায় লেখক জ্যোতিষী। ১৯৫১ সালে কোলকাতায় জন্ম। কোলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাণিজ্যে স্নাতক। একুশ বছর বয়েস থেকে বিভিন্ন দৈনিক, সাপ্তাহিক পাক্ষিক ও মাসিক পত্রিকায় স্থান পেয়েছে জ্যোতিষের প্রশ্নোত্তর বিভাগ, ছোট গল্প, রম্যরচনা, প্রবন্ধ, ভিন্নস্বাদের ফিচার। আনন্দবাজার পত্রিকা, সানন্দা, আনন্দলোক, বর্তমান, সাপ্তাহিক বর্তমান, সুখী গৃহকোণ, সকালবেলা সাপ্তাহিকী, নবকল্লোল, শুকতারা, দ্য টাইমস অফ ইন্ডিয়ার নিবেদন 'আমার সময়' সহ অসংখ্য পত্রিকায় স্থান পেয়েছে অজস্র ভ্রমণকাহিনি, গবেষণাধর্মী মনোজ্ঞ রচনা।

Check Also

Fullara

মানুষ সাধু হয় কেমন করে – মানসিক স্থিরতা আনার উপায় – শিবশংকর ভারতী

পৃথিবীতে সেই ব্যক্তিই সবচেয়ে বড় মূর্খ যে নিজেকে পণ্ডিত বা সবজান্তা মনে করে, সেই ব্যক্তিই বড় অসাধু যে সৎ বা সাধু মনে করে নিজেকে।

2 comments

  1. Suvendu Nandi

    জয় শ্রী রাম

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *