Kolkata

কুণালের দৌত্যে অভিষেকের সঙ্গে বৈঠক, দিল্লি যাচ্ছেন না শতাব্দী রায়

দিনভর টানটান নাটকের পর অবশেষে যবনিকা পতন হল। দিল্লি যাচ্ছেন না শতাব্দী রায়। সেকথা রাতে নিজেই জানিয়েছেন তিনি। শতাব্দী দলেই আছেন বলে জানিয়েছে দিয়েছেন কুণাল ঘোষ।

কলকাতা : একেই তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দেওয়ার হিড়িকে তৃণমূলের অন্দরমহলে তোলপাড় চলছে। তারমধ্যেই তৃণমূল সাংসদ শতাব্দী রায়ের গলায় শোনা গিয়েছিল উল্টো সুর। আর সিঁদুরে মেঘের মতই তৃণমূল নেতৃত্ব প্রমাদ গুনতে শুরু করেছিল।

তবে কী আরও একটা উইকেট পড়তে চলেছে তৃণমূল থেকে? এ প্রশ্ন ঘুরছিল মুখে মুখে। শতাব্দী রায়ের একটি ফেসবুক পোস্টের পরই তুঙ্গে ওঠে জল্পনা। আর সেই জল্পনায় অবশেষে শুক্রবার রাতে জল ঢাললেন শতাব্দী নিজেই।

ফেসবুক পোস্টে শতাব্দী জানিয়েছিলেন যে তিনি কাজ করতে পারছেন না। মানুষের সঙ্গে সংযোগ রাখতে চাইছেন কিন্তু তা পেরে উঠছেন না। কার্যত এ নিয়ে দলীয় নেতৃত্বকে জানিয়েও হয়তো কাজ হবে না বলেই মনে করছিলেন শতাব্দী। শতাব্দী নিজের অনুরাগীদের জানান, তিনি কী সিদ্ধান্ত নেবেন তা শনিবার দুপুরেই তিনি জানিয়ে দেবেন। তিনি দিল্লি যাচ্ছেন।

দিল্লি যাচ্ছেন? সেখানে কী অমিত শাহর সঙ্গে বৈঠক করতে চলেছেন শতাব্দী? তাহলে কী তিনি বিজেপিতে যোগ দেওয়া সময়ের অপেক্ষা? এমন একের পর এক প্রশ্ন বঙ্গ রাজনীতিতে তুফান তুলেছিল।

শতাব্দীও পরিস্কার করে কিছু না বললেও তাঁর কথাবার্তা থেকে বিজেপিতে যোগ দেওয়ার ইঙ্গিত অনেকে পাচ্ছিলেন। যে ইঙ্গিত হয়তো তৃণমূল নেতৃত্বের কাছে পৌঁছতেও দেরি হয়নি। দল ছাড়ার হিড়িকে নাজেহাল তৃণমূল নেতৃত্ব আরও একটা ধাক্কা নিতে চায়নি।

দ্রুত তৃণমূল মুখপাত্র কুণাল ঘোষ পৌঁছে যান শতাব্দী রায়ের বাড়িতে। সেখানে তাঁর সঙ্গে কথা বলার পর কুণাল ঘোষ শতাব্দীকে নিয়ে আসেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের অফিসে। সেখানে প্রায় ২ ঘণ্টা ২ জনের কথা হয়। তারপরই বরফ গলে।

বৈঠকে ঠিক কী কী বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়েছে সে সম্বন্ধে কিছু জানাতে না চাইলেও শতাব্দী রায় রাতে সংবাদমাধ্যমকে জানিয়ে দেন, তাঁর যে বিষয়গুলি নিয়ে ক্ষোভ ছিল তা তিনি অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কে জানিয়েছেন।

সে সমস্যার সমাধান হবে বলেই মনে করছেন শতাব্দী। তাছাড়া তিনি রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব নন। তিনি রাজনীতিতে এসেছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে দেখে। এখনও তিনি দিদির সঙ্গেই থেকে যেতে চান।

শতাব্দী এও জানান শনিবার তাঁর দিল্লি যাওয়ার কথা থাকলেও আপাতত তিনি দিল্লি যাচ্ছেন না। পরে কুণাল ঘোষও জানিয়ে দেন শতাব্দী রায় নিজেই জানিয়ে দিয়েছে তিনি দলেই আছেন। কোথাও যাচ্ছেন না। বরং দলের বিরুদ্ধে যাঁদের ক্ষোভ রয়েছে তাঁদেরও এই সময় সব ভুলে একসঙ্গে কাজ করার কথা বলেন তিনি।

Show More

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button