Bosepukur Sitala Mandir

বোসপুকুর শীতলা মন্দির

কসবার দিকের নামকরা পুজো বললে হাতে গোনা কয়েকটা নামই মনে পড়ে। তারমধ্যে অবশ্যই বোসপুকুর শীতলামন্দিরের পুজো অন্যতম। ২০০১ সালে ভাঁড়ের প্যান্ডেল করে প্রথম লাইমলাইটে আসে এই পুজো। সেবার কলকাতায় হৈহৈ ফেলে দিয়েছিল এই পুজো। পুজোর দিনগুলোয় পুরো ভিড়টাই শুষে নিয়েছিল বোসপুকুর শীতলামন্দির। রাস্তার ওপরই পুজো। ফলে বন্ধ হতে বসেছিল গড়িয়াহাট থেকে রুবিগামী রাস্তায় যান চলাচল। সেই থেকে প্রতি বছরই নতুন নতুন চমক থাকে বোসপুকুর শীতলামন্দিরের দুর্গাপুজোয়।

১৯৫০ সালে স্থানীয় লোকজনের হাত ধরে শুরু হয় এই পুজো। স্থানীয় মন্দির চত্বরে আয়োজন হত পুজোর। ১৯৯৬ সাল থেকে থিমের পুজো শুরু করে বোসপুকুর শীতলামন্দির।

এ বছর বোসপুকুর শীতলামন্দিরের পুজোর থিম ‘পুকুরে সোনার জল’। প্যান্ডেল তৈরি হচ্ছে পিভিসি পাইপ দিয়ে। এই নতুন ভাবনাকে বাস্তবায়িত করে তুলছেন গোবিন্দ গিরি। তিনিই এই পুজোর থিম শিল্পী। তবে প্রতিমা হচ্ছে সাবেকি ঘরানার। প্রতিমার রূপদান করছেন সৌমেন পাল।

এবার বোসপুকুর শীতলামন্দিরের বাজেট আনুমানিক ৪৫ লক্ষ টাকা। প্রাত্যহিক প্রায় ৫ লক্ষ মানুষের সমাগম আশা করছেন উদ্যোক্তারা। তবে এখনও উদ্বোধনের দিন স্থির হয়নি।

About News Desk

Check Also

Chaltabagan

চালতাবাগান

বাড়িতে পশু-পাখিকে পোষ্য করে রাখার বিরুদ্ধে নীরব প্রতিবাদই এই পুজোর থিম। মানিকতলার অদূরে চালতাবাগানের লোহাপট্টির পুজো কলকাতার নামীদামী পুজোর একটা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *