National

নিউ ইয়ারের আগেই খুলছে পুরীর জগন্নাথ মন্দির

দেশে লকডাউন শুরুর আগে পুরীর জগন্নাথ মন্দিরে সাধারণের প্রবেশ নিষেধ হয়েছিল। তবে নতুন বছর আসার আগেই মন্দির খুলে যাবে বলে ইঙ্গিত দিয়েছে মন্দির কর্তৃপক্ষ।

ভুবনেশ্বর : করোনা রুখতে দেশে লকডাউন শুরু হয়েছিল গত ২৫ মার্চ। তবে তার আগে থেকেই এক এক করে বন্ধ হচ্ছিল মন্দির থেকে শুরু করে দর্শনীয় স্থান। সে সময় অন্যান্য মন্দিরের মতই ভক্তদের জন্য বন্ধ হয়ে যায় পুরীর জগন্নাথ মন্দিরে প্রবেশ। ২০ মার্চ বন্ধ হয় পুরীর জগন্নাথ মন্দিরে সাধারণের প্রবেশ। সেই যে সাধারণের জন্য জগন্নাথ মন্দিরের দরজা বন্ধ হয়েছিল, তারপর এখনও তা সাধারণের জন্য বন্ধই রয়েছে।

এরমধ্যে রথযাত্রা অনুষ্ঠিত হয়েছে। শ্রী জগন্নাথ, বলরাম ও সুভদ্রা রীতি মেনে তাঁদের রথে গুন্ডিচা বাড়ি গেছেনও। কিন্তু তা দর্শনের জন্য রাস্তায় ভক্তের ঢল ছিলনা। মন্দির কর্তৃপক্ষ ও সেবায়েতরা রথযাত্রার নিয়ম পূরণ করেন।

এরপর ক্রমে শিথিল হয়েছে লকডাউন। খুলেছে অনেক মন্দিরের দরজাও। কিন্তু পুরীর জগন্নাথ মন্দিরের দরজা এখনও সাধারণ ভক্তের জন্য বন্ধই রয়েছে। তবে তা ইংরাজি নতুন বছরের আগেই খুলে যাবে বলে ইঙ্গিত দিয়েছে শ্রী জগন্নাথ টেম্পল অ্যাডমিনিস্ট্রেশন।

ওড়িশা সরকারের কাছে চিঠি দিয়ে মন্দির কর্তৃপক্ষ মন্দির ভক্তদের জন্য খুলে দেওয়া নিয়ে আবেদন জানিয়েছে। সেক্ষেত্রে ওড়িশা সরকারের সঙ্গে কথা বলে মন্দিরের দরজা বড়দিনের আগেই খুলতে পারে বলে ইঙ্গিত মিলেছে। যদিও আনুষ্ঠানিক ঘোষণা কিছু হয়নি। তবে মন্দির কর্তৃপক্ষ চাইছে করোনাবিধি মেনে গাইডলাইন তৈরি করে খোলা হোক মন্দিরের দরজা।

যা স্থির হয়েছে তাতে ১৯টি গাইডলাইন থাকবে ভক্তদের জন্য। তবেই মিলবে শ্রী জগন্নাথ, বলরাম ও সুভদ্রার দর্শন। মন্দিরে ঢুকতে গেলে প্রাথমিক শর্ত হিসাবে থাকবে যিনি প্রবেশ করছেন তাঁর করোনা নেগেটিভ রিপোর্ট। সেই রিপোর্ট দেখে মুখে মাস্ক থাকলে তবেই মিলবে মন্দিরে প্রবেশের অনুমতি।

এছাড়া মন্দিরের ৪টি দ্বারেই থাকবে স্যানিটাইজারের বন্দোবস্ত। এছাড়া সারাদিনে সর্বোচ্চ ৫ হাজার ভক্ত প্রবেশ করতে পারবেন মন্দিরে। আরও বিভিন্ন নিয়ম আরোপ করা হবে মন্দির কর্তৃপক্ষের তরফে।

মন্দির খোলার পর প্রথমে কিছুদিন কেবলমাত্র পুরী জেলার মানুষই মন্দিরে প্রবেশ করতে পারবেন। তারপর দেওয়া হবে অন্য জায়গা থেকে আসা মানুষের প্রবেশের সুযোগ।

তবে জানুয়ারি ১ এবং ২ তারিখ মন্দির সাধারণের জন্য ফের বন্দ করা হবে। কারণ পূর্বের বছরগুলির অভিজ্ঞতায় মন্দির কর্তৃপক্ষ দেখেছে ওই ২ দিন মন্দিরে ভক্তের ঢল নামে। বহু মানুষ ওই ২ দিন মন্দিরে প্রবেশ করেন। জানুয়ারির ৩ তারিখ থেকে বাইরের জেলার মানুষজনকে মন্দিরে প্রবেশ করতে দেওয়া হবে। — সংবাদ সংস্থার সাহায্য নিয়ে লেখা

Show More

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button