Friday , May 24 2019
Virat Kohli
বিরাটের উইকেটই ভারতের কফিনে শেষ পেরেকটা পুঁতে দেয়, ছবি - আইএএনএস

ধোনির শহরে হারল ভারত, সিরিজে টিকে রইল অস্ট্রেলিয়া

একদিনের সিরিজে পরপর ২টি হারের পর অবশেষে তৃতীয় ম্যাচে জয়ের মুখ দেখল অস্ট্রেলিয়া। ধোনির শহরে হেরে গেল ভারত। ৩২ রানে জিতে সিরিজে টিকে রইল অস্ট্রেলিয়া। ৫ ম্যাচের সিরিজ ৩ ম্যাচের শেষে দাঁড়াল ২-১-এ। শুক্রবার টস জিতে প্রথমে অস্ট্রেলিয়াকে ব্যাট করতে পাঠান ভারত অধিনায়ক বিরাট কোহলি। গত ম্যাচের মতই এদিনও সফল হয় অস্ট্রেলিয়ার ওপেনিং জুটি। অধিনায়ক ফিঞ্চ ও খোওয়াজা মিলেই এদিন কার্যত ম্যাচের ভাগ্য নির্ধারণ করে দেন। খেলার ৩১ ওভার শেষ করে অবশেষে ভারত প্রথম উইকেটের মুখ দেখে। ব্যক্তিগত ৯৩ রানের মাথায় আউট হন ফিঞ্চ। তখন দলের রান ১৯৩। ১৯৩ রানের মাথায় অস্ট্রেলিয়ার প্রথম উইকেট পড়ায় তখন বড় রান গড়ার হাতছানি দারুণভাবে বেঁচেছিল অজি ইনিংসে।

ফিঞ্চের পর খোওয়াজা-ম্যাক্সওয়েল জুটি বেশ কিছুটা রান টানার পর ১০৪ রান করে আউট হন খোওয়াজা। ৪৭ রান করে এরপর ফেরেন ম্যাক্সওয়েল। ৭ রান করে ফেরেন মার্স। শূন্য রানে ফেরেন হ্যান্ডসকম্ব। এরপর স্টোইনিজ ও কেরি জুটি দুর্দান্তভাবে স্লগ ওভারে ব্যাট করেন। ২ জনেই শেষ পর্যন্ত অপরাজিত থাকেন। স্টোইনিজ করেন ৩১ রান এবং কেরি দলের খাতায় যোগ করেন ২১ রান। ৫০ ওভারের শেষে ৫ উইকেট হারিয়ে অস্ট্রেলিয়া করে ৩১৩ রান।

৩১৪ রান করলে জিতবে। পাহাড় প্রমাণ রান। তবে টি-২০ খেলার সুবাদে ৫০ ওভারে এই রান খুব কঠিনও নয়। তবে শর্ত একটাই। হাতে উইকেট ধরে রাখতে হবে। এই অবস্থায় ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই ধসে যায় ভারতীয় ইনিংস। শিখর ধাওয়ান ১ রানে, রোহিত শর্মা ১৪ রানে ও রাইডু ২ রান করে ফেরেন। দলের ২৭ রানের মধ্যেই ভারত ৩ উইকেট হারিয়ে কার্যত শুরুতেই হেরে বসে। এই পরিস্থিতি থেকে খেলা বার করা কার্যতই কঠিন হয়ে পড়ে। এই অবস্থায় ফের এদিন ত্রাতার ভূমিকা নেন অধিনায়ক বিরাট কোহলি। ধোনির সঙ্গে জুটি বেঁধে খাদের কিনারা থেকে ভারতকে খেলায় ফিরিয়ে আনে বিরাট-ধোনি জুটি। কিন্তু অ্যাডাম জাম্পার তুখোড় স্পিন বুঝতে না পেরে একরকম পাড়ার মাঠেই আউট হয়ে ফেরেন ধোনি। ২৬ রানে আউট হন তিনি। এরপর কোহলির সঙ্গে জুটি বাঁধেন কেদার যাদব।

কোহলি-কেদার জুটি কিন্তু অনেকটাই খেলাকে টেনে নিয়ে যায়। ২৬ রানের মাথায় কেদার যাদবও শিকার হন জাম্পার। একদিকে কিন্তু একাই লড়ে যাচ্ছেন কোহলি। কেদার আউট হওয়ার পর বিরাটকে সঙ্গত দিতে শুরু করেন বিজয় শঙ্কর। এরা ২ জনে কার্যত হারা ম্যাচের মোড় ঘুরিয়ে দেন। বল ও প্রয়োজনীয় রানের ফারাক অনেকটা কমে আসে। দরকার ছিল উইকেট ধরে রাখার। বিরাটের ব্যাট শতরান পার করেও চলতে থাকে। এদিন ৪১ তম শতরান সম্পূর্ণ করলেন তিনি। অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে অষ্টম শতরান করলেন বিরাট। তবে দলের ২১৯ রানের মাথায় বিরাটও জাম্পার হাতে বোল্ড হওয়ার পর খেলা ফের কঠিন হয়ে পড়ে। ১২৩ রানে আউট হন বিরাট। যার মধ্যে ১টি ছক্কা ও ১৬টি চার হাঁকান তিনি।

বিজয় শঙ্কর ও জাদেজা কিছুক্ষণ লড়াই দেন ঠিকই তবে বিজয় (৩২) আউট হওয়ার পর খেলা আরও কঠিন হয়ে পড়ে। জাদেজাও ২৪ রান করে ফেরেন। ততক্ষণে বল ও প্রয়োজনীয় রানের ফারাক অনেকটা বেড়ে গেছে। এই অবস্থায় কুলদীপ যাদব ১০ রান করে ও মহম্মদ সামি ৮ রান করে আউট হন। ৪৮.২ ওভারে ২৮১ রানে শেষ হয়ে যায় ভারতের ইনিংস। ৩২ রানে জিতে যায় অস্ট্রেলিয়া। বিরাটের রান বেশি থাকলেও ম্যান অফ দ্যা ম্যাচ হন অস্ট্রেলিয়ার উসমান খোওয়াজা। আগামী রবিবার অনুষ্ঠিত হবে চতুর্থ একদিনের দ্বৈরথ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *