Sports

বিশ্বকাপে অঘটন, কোরিয়ার কাছে ২ গোলে হেরে ছিটকে গেল জার্মানি

লজ্জার হার হেরে বিশ্বকাপের শেষ ষোলোর দৌড় থেকে ছিটকে গেল গতবারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন জার্মানি। হারল দক্ষিণ কোরিয়ার কাছে। অন্য খেলায় সুইডেন মেক্সিকোকে হারিয়ে পৌঁছে গেল শেষ ষোলোয়। গ্রুপ লিগ থেকে জার্মানির ছিটকে যাওয়ায় গোটা বিশ্ব হতবাক। কিন্তু প্রশ্ন হল এদিন জার্মানি দলটা যে খেলা খেলল তা কী সত্যিই জার্মানির খেলা? নাকি অন্য কোনও দল খেলছিল? পায়ে বল রয়েছে সারাক্ষণ। কোরিয়ার গোলের মুখে হানা হচ্ছে বারবার। গোলের অবস্থা তৈরি হচ্ছে। পা বা মাথা ছোঁয়ালেই গোল। এই অবস্থায় ফিনিশ করতে পারছে না জার্মানি। হয় বল উড়িয়ে দিচ্ছে। নাহলে দুর্বল শট পৌঁছে যাচ্ছে গোলকিপারের হাতে।

এদিন কিন্তু পুরো ম্যাচ ডিফেন্স খেলে গেল কোরিয়া। মাঝেমধ্যে কাউন্টার অ্যাটাকে উঠে এলেও তাতে ধার ছিলনা। গোলের পরিস্থিতি তৈরি হচ্ছিল না। অন্যদিকে জার্মানি মাঠ জুড়ে খেলে যাচ্ছিল। সেট পিস নানাভাবে তৈরি ছিল। হোম ওয়ার্কের অভাব ছিলনা। কিন্তু কোথাও যেন গোলমুখে তাল কাটছিল। আর সেটাই পুরো সময় ভুগিয়েছে জার্মানিকে। বরং ইনজুরি টাইমের প্রথমেই কর্নার থেকে গোল পেয়ে পাল্টা জার্মানিকে পিছনে ফেলে এগিয়ে যায় কোরিয়া। জার্মানি এদিন কিন্তু অনেক বেশি কর্নার পেয়েছে। কিন্তু তা থেকে গোলের পরিস্থিতি তৈরি করতে পারেনি। ১-০ হওয়ার পর জার্মানির সামনে মরিয়া আক্রমণ ছাড়া রাস্তা খোলা ছিল না। আর সেই চেষ্টা করতে গিয়েই ফের গোল খায় তারা। ইনজুরি টাইমে জার্মানিকে ২ গোল দিয়ে খেলা জেতে দক্ষিণ কোরিয়া। দক্ষিণ কোরিয়ার এই জয় অবশ্যই এশীয় ফুটবলের জন্য বড় খবর। তবে জার্মানির গ্রুপ লিগে ২টি হার ও লিগ স্তর থেকেই বিদায় চিরকাল বিশ্ব ফুটবলের ইতিহাসে এক কাহিনি হয়ে থেকে যাবে।

এই জার্মানি বোধহয় চিরদিন জার্মান ফুটবলের লজ্জার দল হয়ে থাকবে। যারা তাদের নিজেদের দেশের তৈরি ফুটবল বেঞ্চমার্ককেই হেলায় ধুলোয় মিশিয়ে দিয়েছে। এ দল শেষ ষোলোয় যদি যেতেও পারত তাহলেও সেই গণ্ডি পার করা প্রায় অসম্ভব ছিল। কারণ এদিন যত সুযোগ তাদের কোরিয়া দিয়েছে অত সুযোগ অন্য কোনও দল তাদের দিতনা। হাফ চান্সকে ফুল চান্স করা দূরে থাক ওপেন নেটেও এদিন বারবার গোল করতে ব্যর্থ হয়েছে জার্মানি। ফলে এ জার্মানি শেষ ষোলোয় না যেতে পারা বোধহয় ফুটবলের পক্ষে তেমন কোনও ক্ষতির কারণ হলনা।

গ্রুপ ই-র অন্য খেলায় প্রথমার্ধ গোলশূন্য থাকলেও দ্বিতীয়ার্ধে ভয়ংকর মূর্তি ধরে সুইডেন। প্রথম ২টি ম্যাচ জিতে থাকার সুবাদে মেক্সিকো আগেই শেষ ষোলোয় পৌঁছে গিয়েছিল। এদিন তাদের নিয়মরক্ষার ম্যাচে কিন্তু দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই ৫০ মিনিটের মাথায় অগাস্টিনশনের গোলে এগিয়ে যায় সুইডেন। খেলার ৬২ মিনিটের মাথায় পেনাল্টি পায় তারা। ফলে ২ গোলে এগিয়ে যাওয়ার সুযোগ তৈরি হয়। যাকে বাস্তব রূপ দেন সুইডেনের গ্রাঙ্কভিস্ত। এরপর খেলায় ফেরার মরিয়া চেষ্টা করতে থাকে মেক্সিকো। কিন্তু ৭৪ মিনিটের মাথায় নিজেদের গোলেই বল ঠেলে হারের কফিনে শেষ পেরেকটা মেরে দেন মেক্সিকোর আলভারেজ। ৩-০ ব্যবধানে এগিয়ে যায় সুইডেন। শেষ বাঁশি বাজা পর্যন্ত এই স্কোরই বজায় ছিল। ই গ্রুপ থেকে শেষ ষোলোয় গেল সুইডেন ও মেক্সিকো। ছিটকে গেল দক্ষিণ কোরিয়া ও জার্মানি।


Show Full Article

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button