State

মনোনয়ন দাখিল ঘিরে রাজ্যের কোণায় কোণায় সংঘর্ষ, ভাঙচুর

পঞ্চায়েত নির্বাচনের মনোনয়ন পেশ নিয়ে সোমবারও রাজ্যের বিভিন্ন কোণায় অশান্তির ঘটনা ঘটে। বীরভূমের সিউড়ি ১নং ব্লকে তৃণমূল-বিজেপি সংঘর্ষে ১ ব্যক্তির গুলিবিদ্ধ হয়ে মৃত্যু হয়। এত ভয়ংকর ঘটনা না ঘটলেও রাজ্যের অনেক জায়গা থেকেই উত্তেজনা, সংঘর্ষের খবর সামনে এসেছে। ডায়মণ্ডহারবারে এদিন সকালে সিপিএম প্রার্থীদের নিয়ে মনোনয়ন পেশ করতে মিছিল করে বার হন ২ সিপিএম নেতা কান্তি গঙ্গোপাধ্যায় ও সুজন চক্রবর্তী। সিপিএমের এই ২ দাপুটে নেতাই দক্ষিণ ২৪ পরগনায় বাম রাজনীতির সঙ্গে বহুকাল ধরে জড়িত। এদিন তাঁদের মিছিল কিছুটা এগোতেই তাঁদের পথ আটকানো হয় বলে অভিযোগ। হুমকি দেওয়ারও অভিযোগ করেছেন ২ বাম নেতা। পরে প্রতিরোধের মুখে মনোনয়ন দাখিল না করেই তাঁরা তাঁদের প্রার্থীদের নিয়ে ফিরে যান।

এদিন সকালে বহরমপুর ব্লক অফিসে মনোনয়নে বাধা দেওয়া হচ্ছে বলে খবর পান কংগ্রেস বিধায়ক মনোজ চক্রবর্তী। তিনি নিজে আসেন দলীয় প্রার্থীদের মনোনয়ন দাখিল করাতে। এই সময়ে তাঁর ওপর লাঠিসোঁটা নিয়ে রাস্তার ওপরই হামলা চালায় বেশ কয়েকজন যুবক। এরা প্রত্যেকেই তৃণমূল কর্মী বলে দাবি করেছে কংগ্রেস। মনোজবাবুকে রাস্তায় ফেলে মারধর করা হয়। তাঁর ডান হাতে লাঠির জোড়াল ঘা পড়ে। মনোজ চক্রবর্তীকে মারধরের প্রতিবাদে কংগ্রেস কর্মীরা ৩৪ নং জাতীয় সড়ক অবরোধ করেন। বেশ কিছুক্ষণ চলে অবরোধ।

মুর্শিদাবাদের লালবাগে সিপিএম কার্যালয়ে হামলার ঘটনা ঘটে। এখানেও তৃণমূলের বিরুদ্ধেই হামলা চালানোর অভিযোগ সামনে এসেছে। সিপিএম কার্যালয়ে ভাঙচুর চালান হয়। মারধর করা হয় দলীয় কর্মীদের। দক্ষিণ ২৪ পরগনার বিষ্ণুপুরে বিরোধী কোনও দলকেই মনোনয়ন দাখিল করতে দিতে না দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে শাসক দলের কর্মীদের বিরুদ্ধে। ভয় দেখিয়ে রাস্তা থেকেই বিরোধী প্রার্থীদের ফেরত পাঠান হয় বলে অভিযোগ। ফলে এখানেও কিছুটা উত্তেজনা সৃষ্টি হয়।

দক্ষিণ ২৪ পরগনার ক্যানিংয়ে তৃণমূল নেতাকে মারধরের অভিযোগ উঠেছে কংগ্রেসের বিরুদ্ধে। এদিন কংগ্রেস মিছিল করে প্রার্থীদের মনোনয়ন দাখিল করাতে যাচ্ছিল। অভিযোগ সেই সময়ে তাঁদের পথ আটকান তৃণমূল কর্মীরা। শুরু হয় দুপক্ষে সংঘর্ষ। এই সময়ে তৃণমূল নেতা গোপাল কুণ্ডুকে বেধড়ক মারধর করা হয় বলে অভিযোগ। অভিযোগের তির কংগ্রেসের দিকে।


বাঁকুড়ার সোনামুখীতে তৃণমূলেরই ২ গোষ্ঠীর মধ্যে সংঘর্ষের পরিস্থিতি তৈরি হয়। অবরোধ হয় বর্ধমান-বাঁকুড়া রাজ্য সড়ক। হাতে বন্দুক উঁচিয়ে প্রকাশ্য রাস্তায় মুখ ঢেকে হুমকি দিতে দেখা যায় কয়েকজন যুবককে। দীর্ঘক্ষণ রাস্তা অবরোধ থাকার পর অবশেষে পুলিশি হস্তক্ষেপে অবরোধ ওঠে।

বীরভূমের মুরারইতে সিপিএম তৃণমূল সংঘর্ষ বাধে বেলার দিকে। দুবরাজপুরে বিজেপির মিছিলে হামলার অভিযোগ সামনে এসেছে। অভিযোগের তির তৃণমূলের দিকে। এদিকে মনোনয়ন দাখিলে বাধা দেওয়ার অভিযোগে হুগলির চণ্ডীতলায় পথ অবরোধ করে বিজেপি। মুর্শিদাবাদের সামশেরগঞ্জে আক্রান্ত হন কংগ্রেস সাংসদ আবু হাসেম খান চৌধুরী।

Show Full Article

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button