State

বেপরোয়া রবীন্দ্রনাথ, হুমকি উদয়নের, আত্মবিশ্বাসী শুভেন্দু

West Bengal Assembly Election 2016ষষ্ঠ ও শেষ দফার ভোটেও বিতর্ক পিছু ছাড়ল না তৃণমূলের। কোচবিহারের নাটাবাড়ির তৃণমূল প্রার্থী রবীন্দ্রনাথ ঘোষ এদিন সকাল থেকেই খবরের শিরোনামে। সকাল থেকেই বিভিন্ন বুথে ঘুরছিলেন তিনি। সেখানেই একটি বুথের সামনে তাঁরই দলের এক কর্মী তাঁকে অভিযোগ জানাতে এলে তাঁকে সপাটে চড়িয়ে দেন রবীন্দ্রনাথবাবু। দলীয় প্রার্থীর এভাবে সকলের সামনে মেজাজ হারিয়ে দলীয় কর্মীকে চড় ভাল চোখে নেননি তৃণমূলের স্থানীয় কর্মী সমর্থকেরা। বেলার দিকে অন্য একটি বুথে সেক্টর অফিসারকে হুমকি দেওয়ার অভিযোগও ওঠে রবীন্দ্রনাথবাবুর বিরুদ্ধে। অফিসারকে সিপিএমের দালাল বলেও হুমকি দেন তিনি। হুমকি দেন এক ভোটকর্মীকেও। সংবাদমাধ্যমের ক্যামেরার সামনেই সেই ভোটকর্মী কোথায় কাজ করেন তা জেনে নেন তিনি। প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক বলে পরিচয় দেওয়ায় তাঁর ব্যবস্থা নিতে সুবিধা হবে বলেও জানিয়ে দিয়ে যান রবীন্দ্রনাথ ঘোষ। অভিযোগ একটি বুথের ২০০ মিটারের মধ্যে দলীয় প্রতীক লাগান গাড়ি নিয়ে ঢুকে পড়েন তিনি। বিতর্কে নাম জড়িয়েছে দিনহাটার তৃণমূল প্রার্থী উদয়ন গুহরও। নিজের এলাকায় ঘোরার সময় একটি ভোটকেন্দ্রে ফোন কানে ইভিএমের কাছে চলে যান তিনি। ছাপ্পা ভোটের অভিযোগ ওঠে তাঁর বিরুদ্ধে। একটি কেন্দ্রের কাছ থেকে ভিড় হঠাতে পুলিশের উদ্যোগেরও খোলাখুলি সমালোচনা করেন তিনি। ভোট চলাকালীন গাড়ির ডিকি খুলে খুলে পরীক্ষার বিরুদ্ধেও তাঁকে সরব হতে দেখা যায়। এক পুলিশ আধিকারিক অতি সক্রিয়তা দেখাচ্ছেন বলে অভিযোগ করে তাঁর সামনে দাঁড়িয়েই তাঁকে সরানোর জন্য সংশ্লিষ্ট উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানাতে শোনা যায় তাঁকে। ছাপ্পাভোট করানোর অভিযোগে রবীন্দ্রনাথ ও উদয়নের বিরুদ্ধে এফআইআর দায়েরের নির্দেশ দিয়েছে নির্বাচন কমিশন। অন্যদিকে নন্দীগ্রামের তৃণমূল প্রার্থী শুভেন্দু অধিকারী এদিন সকাল থেকেই নিজের এলাকা চষে বেড়িয়েছেন। নন্দীগ্রামের অনেক কেন্দ্রে বিরোধীদের এজেন্ট দিতে না পারার দায় বিরোধীদের ঘাড়েই চাপিয়ে দিয়েছেন শুভেন্দুবাবু। তাঁর দাবি, এলাকায় বামেদের কেউ পছন্দ করেন না। তাই বামেরা চেয়েও এজেন্ট পায়নি। এদিন কয়েকটি বুথে কেন্দ্রীয় বাহিনীর সঙ্গেও কথা কাটাকাটিতে জড়িয়ে পড়েন তৃণমূলের এই দাপুটে সাংসদ।


Show Full Article

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button