Health

এখানে গেলেই চামড়ার সমস্যা শুরু হয়ে যাচ্ছে, কিছুতেই ঠেকানো যাচ্ছেনা

চামড়ার সমস্যা অনেক সময় হতে পারে। কিন্তু একটি জায়গায় গেলেই চামড়ার সমস্যা অবশ্যম্ভাবী, এমন পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে। যা বিজ্ঞানের জন্য একটা চ্যালেঞ্জ।

চামড়ার সমস্যা অবশ্যই যে কারও জন্য অস্বস্তিকর। কারও সমস্যা হলে তিনি ত্বক বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নেন। যাঁর পরামর্শে সুস্থও হয়ে ওঠেন। কিন্তু কোথাও গেলে যদি কেউ নিশ্চিত হন যে তাঁর চামড়ার সমস্যা হবেই। তা থেকে মুক্তির উপায় নেই!

মনে হতেই পারে যে সেক্ষেত্রে চামড়া ঢেকে গেলেই হল! কিন্তু এক্ষেত্রে ঢেকে গেলেও সমস্যা থেকে নিস্তার নেই। তবে সাধারণ মানুষের এক্ষেত্রে চিন্তা কম। কারণ তাঁরা এখানে যান না। যান হাতেগোনা মানুষজন। কারণ জায়গাটা মহাকাশ।

দেখা যাচ্ছে মহাকাশে যে নভশ্চরই যাচ্ছেন তাঁর চামড়ার সমস্যা হচ্ছেই। চামড়ায় ব়্যাশ বার হচ্ছে। একটা অস্বস্তি পিছু তাড়া করছে।

সেই সঙ্গে নভশ্চররা নানা ভাইরাস দ্বারা আক্রান্ত হচ্ছেন। এ সবই হচ্ছে শরীরের রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা হ্রাসের কারণে। মহাকাশে ভরশূন্য অবস্থায় পৌঁছনোর পর সেখানে দীর্ঘ সময় থাকেন নভশ্চররা।


মহাকাশে পৌঁছনোর পর নভশ্চরদের শরীরের রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা উল্লেখযোগ্য ভাবে হ্রাস পায়। রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা কমে যাওয়া, শ্বেত রক্তকণিকার স্বাভাবিক চরিত্রে বদল, নভশ্চরদের ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়া বা চামড়ার সমস্যার শিকার হওয়ার মুখে ফেলছে, এমনই জানাচ্ছেন কানাডার অটোয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের বায়োলজি বিভাগের গবেষকেরা।

মহাকাশে যাওয়ার পর নানা গবেষণামূলক কাজে মাসের পর মাস আন্তর্জাতিক স্পেস স্টেশনে কাটান নভশ্চরের। মাঝে মাঝে তাঁদের মহাকাশে ভেসেও বেড়াতে হয়।

এদিকে বেশ কয়েক মাস মহাকাশে কাটিয়ে নভশ্চররা যখন ফের পৃথিবীতে ফিরে আসেন তার বেশ কিছুদিন পর থেকেই আবার তাঁদের শরীরে পুরনো রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা ফিরে আসে। — সংবাদ সংস্থার সাহায্য নিয়ে লেখা

Show Full Article

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button