National

৭০ হাজারের দরজায় রয়ে গেল সংক্রমণ, মোট সংক্রমণ ৩০ লক্ষ পার

সেই ৭০ হাজারের দরজাতেই রয়ে গেল দেশে দৈনিক সংক্রমণ। যার হাত ধরে দেশে মোট সংক্রমিতের সংখ্যা ৩০ লক্ষ পার করে গেল।

নয়াদিল্লি : দেশে করোনা রোগীর সংখ্যা প্রতিদিন বাড়ছে। কদিন আগেই তা লাফ দিয়ে পৌঁছে গিয়েছিল ৭০ হাজারের দরজায়। যা ছিল একটি রেকর্ড। এখন সেটাই প্রাত্যহিক হয়ে দাঁড়িয়েছে। ফের একদিনে সংক্রমণ পৌঁছে গেছে ৭০ হাজারের দরজায়। দেশে গত একদিনে নতুন করে করোনা রোগী পাওয়া গিয়েছে ৬৯ হাজার ২৩৯ জন। প্রায় এক জায়গায় থাকলেও এই সংখ্যা গত দিনের তুলনায় অনেকটা বেশি চিন্তার। কারণ আগের একদিনে ১০ লক্ষ ২৩ হাজার ৮৩৬টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছিল। তুলনায় গত একদিনে অনেকটা কমে ৮ লক্ষ ১ হাজার ১৪৭টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। ২ লক্ষ কম নমুনা পরীক্ষার পরও সংক্রমণ কিন্তু একই জায়গায় রয়ে গেল।

গত একদিনের রোগী বৃদ্ধির সংখ্যার পর দেশে এখন মোট করোনা রোগীর সংখ্যা ৩০ লক্ষ পার করে গেছে। মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৩০ লক্ষ ৪৪ হাজার ৯৪০ জন। এদিন দেশে অ্যাকটিভ রোগীর সংখ্যাও ৭ লক্ষের ঘরে ঢুকে পড়েছে। দেশে এখন অ্যাকটিভ রোগীর সংখ্যা ৭ লক্ষ ৭ হাজার ৬৬৮ জন। দেশে সুস্থ হয়ে ওঠা পাল্লা দিয়ে প্রতিদিন বাড়তে থাকায় সংখ্যার নিরিখে অ্যাকটিভ রোগীর সংখ্যা দৈনিক সংক্রমণের নিরিখে কমই থাকছে।

দেশে যখন করোনা রোগীর সংখ্যা বাড়ছে তখন বাড়ছে করোনায় মৃত্যুও। গত একদিনে ৯১২ জন রোগীর মৃত্যু হয়েছে। প্রতিদিনই প্রায় ১ হাজার করে বাড়ছে মৃতের সংখ্যা। এদিনের মৃতের সংখ্যার হাত ধরে ৫৬ হাজার পার করে গেল ভারতে করোনায় মৃত্যু। বর্তমানে দেশে করোনায় মোট মৃতের সংখ্যা দাঁড়াল ৫৬ হাজার ৭০৬ জন। দেশের মধ্যে মহারাষ্ট্রের অবস্থা এখনও সবচেয়ে খারাপ। মহারাষ্ট্রে ২৯৭ জনের মৃত্যু হয়েছে গত একদিনে। কর্ণাটকে মৃত্যু হয়েছে ৯৩ জনের। তামিলনাড়ুতে গত একদিনে মৃত্যু হয়েছে ৮০ জনের। অন্ধ্রপ্রদেশে ৯৭ জন প্রাণ হারিয়েছেন। দেশে করোনায় মৃত্যুর হার দাঁড়িয়েছে ১.৮৭ শতাংশে। যেখানে বিশ্বে এখন মৃত্যুর হার প্রায় সাড়ে ৩ শতাংশ।

করোনা রোগী ও মৃত্যু যেমন বেড়ে চলেছে তেমনই অন্যদিকে লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে সুস্থ হয়ে ওঠার হার। গত একদিনে সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৫৭ হাজার ৯৮৯ জন। এর ফলে দেশে মোট করোনামুক্ত মানুষের সংখ্যা সাড়ে ২৩ লক্ষের কাছাকাছি পৌঁছে গেল। দেশে এখন মোট করোনামুক্ত মানুষের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২২ লক্ষ ৮০ হাজার ৫৬৬ জন। দেশে এখন সুস্থতার হার ৭৪ শতাংশের ওপরে রয়েছে। — সংবাদ সংস্থার সাহায্য নিয়ে লেখা

Show More

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *