Sports

রাজকোটে লিন-গম্ভীরের ম্যাজিক শো তারিয়ে উপভোগ করলেন শাহরুখ

টাইফুন, ঝঞ্ঝা, তুফান, ক্যাডাব্যারাস, টর্নেডো। ক্যাপ্টেন হ্যাডককে এই খেলা দেখান হলে এমন সব শব্দ তাঁর মুখ থেকে ক্রমাগত বেরিয়ে আসতে পারত। রাত নামা রাজকোটে কলকাতার দুই নাইট গৌতম গম্ভীর আর ক্রিস লিন যে অতিমানবিক শো এদিন দেখালেন তাতে হ্যাডক কেন হয়তো অনেক ভারতীয়ের মুখ থেকেই এমন সব শব্দ বেরিয়ে আসতো অনায়াসে। যে ভয়ংকর তাণ্ডব এদিন মাঠে এই দুই ব্যাটসম্যান দেখালেন তাতে আইপিএলের অন্য দলগুলোর ওপরও বাড়তি চাপ তৈরি করে দিল।

এদিন টস জেতেন গম্ভীর। জিতে প্রথমে বল করার সিদ্ধান্ত নেন। বোলাররা খুব একটা খারাপ বল না করলেও ফিল্ডিং নিয়ে প্রশ্ন কিন্তু এড়িয়ে যেতে পারবে কেকেআর। শাহরুখের ছেলেরা এদিন শাহরুখের সামনেই একর পর এক জঘন্য ফিল্ডিংয়ের নমুনা তুলে ধরেন। এদিন মাত্র ২০ ওভারের ম্যাচে সুরেশ রায়নাকে আউট করার যতগুলো সুযোগ কেকেআর নষ্ট করেছে তা নিজেই একটা রেকর্ড। ফলে শেষ পর্যন্ত টিকে থেকে দলকে ভাল রান দেন রায়না। ভাল ব্যাট করেন দীনেশ কার্তিকও। এদের যুগলবন্দিতে শেষ পর্যন্ত ১৮৩ রানে ২০ ওভার শেষ করে গুজরাট লায়ন্স। সেই গুজরাট লায়ন্স যাদের সঙ্গে গতবারের আইপিএলে ২ বারই হেরেছিল কলকাতা। এবারও টার্গেট নেহাত কম নয়। ১৮৪ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে কিন্তু এক অন্য মূর্তি ধারণ করলেন গম্ভীর-লিন। লিনটা এদিনের ফাটকা ছিল কেকেআরের জন্য। কারণ গম্ভীরের সঙ্গে উত্থাপ্পা নামেন ওপেন করতে। কেকেআরের লিন ফাটকা যে কতটা সঠিক ছিল তা কিন্তু কেকেআরের ইনিংস শুরুর পর থেকেই টের পেয়ে যায় গুজরাট। প্রবীণ কুমারের মত পোড় খাওয়া বোলার থেকে কৌশিকের মত নতুন বোলাররা। কেউই কেকেআরের চার-ছয়ের বন্যায় বাঁধ দিতে পারেনি। বরং বল হাতে যেই এসেছেন, তখনই বাউন্ডারি পার করেছেন লিন আর গম্ভীর। বিশেষত লিন। যিনি এদিন সবচেয়ে কম বলে ৫০ রান পার করার রেকর্ড গড়লেন আইপিএলে। মাত্র ১৯ বলে ৫০ রান পূর্ণ করেন তিনি। একের পর এক ছয়। একের পর এক চার। গুজরাটের ঘরের মাঠে মারের চোটে ধরাশায়ী হতে থাকা দলকে দেখে দর্শকদের সিংহভাগও বিমর্ষ হয়ে পড়েন। অনেকে অবশ্য কেকেআরের এই তাণ্ডব বিস্ফারিত চোখে দেখেছেন। ক্রিকেটে কথায় বলে চার-ছয়ের বন্যা। এদিন কিন্তু আক্ষরিক অর্থেই চার-ছয়ের বন্যা বয়েছে মাঠে। রেকর্ড গড়েছে কেকেআর। কোনও উইকেট না হারিয়ে জয়ের লক্ষ্য ছুঁয়েছে তারা।

খেলার শেষে ৯৩ রানে লিন ও ৭৬ রানে গম্ভীর জুটি নিশ্চিন্তে মাঠে ব্যাট হাতে দাঁড়িয়ে। দুজনের কেউই ৫০ বল ছুঁতে পারেননি এই রান করতে। বোলারদের এমন মার ক্রিস গেইল ছাড়া আইপিএলে তেমন কেউ দেখিয়ে উঠতে পারেননি। এদিন মাত্র ১৪ ওভার ৪ বলেই ১৮৪ রান ছুঁয়ে ফেলে কেকেআর। ১০ উইকেটে হারায় গুজরাটকে। অবশ্যই গুজরাটের হয়ে এদিন মাঠে নামতে পারেননি ব্রাভো ও রবীন্দর জাদেজা। কিন্তু এদিন যে বিধ্বংসী আগুন ঝরা ব্যাট হাতে গম্ভীর-লিন নেমেছিলেন তাতে এরা থাকলেও তেমন কিছু করে উঠতে পারতেন বলে মেনে নিচ্ছেন না ক্রিকেট বিশেষজ্ঞেরা। কোনও উইকেট না হারিয়ে কেকেআরের এদিনের স্কোরও কিন্তু একটা আইপিএল রেকর্ড। এদিন স্টাইলিস ব্যাটসম্যানের পুরস্কার জেতেন গৌতম গম্ভীর। আর ম্যাচ অফ দ্যা ম্যাচ ক্রিস লিন। এদিন এমন এক আগুনে ইনিংস খেলেও যাঁকে তেমন হাসতে দেখা গেলনা। বরং গোটা দেহে ছড়িয়ে রইল আরও খিদে। আরও মারার আহিঙ্কে। যা হয়তো পরের ম্যাচের জন্য মনে মনে বাঁচিয়ে রাখলেন তিনি। তবে গম্ভীর হেসেছেন। হাসি বলে দিচ্ছিল ভাই, এভাবে জিতব নামার আগেও ভাবিনি! বিশ্বাস কর্!


Show Full Article

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button