SciTech

ভারত মহাসাগর বদলাচ্ছে, প্রলয়ের ইঙ্গিত দেখছেন বিশেষজ্ঞেরা

ভারত মহাসাগরের ধরন বদলে যাচ্ছে। যে অবস্থায় ইতিমধ্যেই পৌঁছে গেছে তাতেই প্রলয়ের ইঙ্গিত পাচ্ছেন বিশেষজ্ঞেরা। কার্যত রাতের ঘুম উড়েছে তাঁদের।

গত ডিসেম্বর মাসে একটি ঘূর্ণিঝড় আছড়ে পড়ে দক্ষিণ ভারতে। মিগজাউম নামে ওই ঝড় যে তাণ্ডব দেখিয়েছিল তা গোটা বিশ্ব দেখেছে। ভয় ধরানোর মত ছিল তার প্রলয়ঙ্করী চেহারা। বিশেষজ্ঞেরা বলছেন বঙ্গোপসাগরে যে সময় এই ঝড় তৈরি হয়ে আছড়ে পড়ে তা স্বাভাবিক ছিলনা।

কিন্তু এল নিনোর কারণে তা অসময়ে এমন ভয়ংকর চেহারা নেয়। বিশেষজ্ঞেরা বলছেন এর পিছনে রয়েছে ভারত মহাসাগরের জলরাশির ধরন বদল।

ঝড় কত ভয়ংকর হবে তা কেবল সমুদ্রের উপরিভাগ কতটা গরম হচ্ছে তার ওপর নয়, সমুদ্রের কত জলরাশি স্বাভাবিকের চেয়ে গরম হচ্ছে তা নির্ধারণ করে। যত বেশি পরিমাণ জল গরম হবে ততই ঝড়ের শক্তি বাড়বে।

তা বেশি সময় ধরে সাগরের ওপর অবস্থান করবে। আর যত বেশি সময় ধরে অবস্থান করবে ততই তা শক্তিশালী হয়ে আছড়ে পড়বে স্থলভাগের ওপর।


দেখা যাচ্ছে উত্তর ভারত মহাসাগরের জলরাশি গরম হয়েছে ৩৮ শতাংশ। যেখানে উত্তর পূর্ব প্রশান্ত মহাসাগরের গরম হওয়াটা ২২ শতাংশে আটকে আছে।

ফলে এটা পরিস্কার যে ভারত মহাসাগরের জল অনেক বেশি গরম হয়ে উঠেছে। আর তাতেই প্রলয়ের ইঙ্গিত পাচ্ছেন বিশেষজ্ঞেরা। তাঁরা মনে করছেন এভাবে জল গরম হতে থাকলে ভয়ংকর সব ঘূর্ণিঝড়ের সংখ্যা বাড়তেই থাকবে। যা মানবসভ্যতার জন্য বড় চ্যালেঞ্জ হবে।

সেই সঙ্গে জল ফেঁপে ওঠার সম্ভাবনা বাড়বে, উত্তাল হবে সমুদ্র, প্রবল বৃষ্টি নেমে আসবে স্থলভাগের ওপর। ভারত মহাসাগরের জলরাশির এভাবে লাফিয়ে লাফিয়ে উত্তাপ বৃদ্ধি কিন্তু বিশেষজ্ঞদের রাতের ঘুম কেড়ে নিয়েছে। যত দ্রুত সম্ভব বিশ্ব উষ্ণায়নে লাগাম না দিতে পারলে ভারত মহাসাগর অতি ভয়ংকর হতে বেশি সময় নেবে না বলেই মনে করছেন তাঁরা। — সংবাদ সংস্থার সাহায্য নিয়ে লেখা

Show Full Article

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button