Kolkata

শুক্রবার ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শনে যাচ্ছেন মুখ্যমন্ত্রী

যশ-এর দাপটে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে রাজ্যের ২ উপকূলীয় জেলা। এছাড়াও দক্ষিণবঙ্গের বেশ কিছু জেলায় কমবেশি ক্ষতি হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শনে শুক্রবার যাচ্ছেন মুখ্যমন্ত্রী।

ঘূর্ণিঝড় যশ ধেয়ে আসছে। তাই মঙ্গলবার রাতে নবান্নেই ছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। তারপর সকাল থেকেও পরিস্থিতির দিকে নজর রেখেছিলেন।

যশ পুরোপুরি ল্যান্ডফল করার পর দুপুরে তিনি একটি সাংবাদিক সম্মেলন করে জানান এখনও ক্ষয়ক্ষতি পরিস্কার নয়। অনেক এলাকা জলের তলায় রয়েছে। তবে প্রাথমিক হিসাবে ১৫ লক্ষের ওপর মানুষকে স্থানীয় প্রশাসন সরিয়ে এনেছে নিরাপদ স্থানে।

তাতেও ১ কোটির ওপর মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন এ রাজ্যে। ৩ লক্ষের ওপর বাড়ির ক্ষতি হয়েছে। জলোচ্ছ্বাসের কারণে বহু এলাকায় সমুদ্রের জল ঢুকেছে হুহু করে। সেসব এলাকা প্লাবিত হয়েছে। নোনা জলে সবচেয়ে বেশি ক্ষতি হয়েছে চাষের।

এ রাজ্যে ১ ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে বলে খবর পাওয়া যায়। মুখ্যমন্ত্রী জানান, ওই ব্যক্তিকে ত্রাণ শিবিরে তুলে আনা হয়েছিল। কিন্তু জল প্লাবিত করার পর তিনি মাছ ধরবেন বলে ত্রাণ শিবির থেকে বেরিয়ে জলে নেমে জাল ফেলতে যান। তখনই ঘটে দুর্ঘটনা। মৃত্যু হয় তাঁর।


এদিকে ত্রাণ শিবিরগুলিতে প্রয়োজনীয় শুকনো খাবার, ত্রিপল ও অন্য ত্রাণ সামগ্রি পাঠানো হয়েছে বলে জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী।

তিনি জানান, আগামী শুক্রবার তিনি ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শনে যাবেন। ঘুরে দেখবেন এলাকা। তার আগে বৃহস্পতিবার ফের তিনি সাংবাদিক সম্মেলন করে বিকেলে জানাবেন রাজ্যে যশ কতটা ক্ষয়ক্ষতি করেছে।

যদিও পুরো ক্ষয়ক্ষতি হিসাব করতে ৭২ ঘণ্টা লাগবে বলেও স্পষ্ট করেছেন মুখ্যমন্ত্রী।

Show Full Article
Back to top button