Kolkata

সচেতনতা বাড়ছে, ফের শহরে ব্রেনডেথের পর অঙ্গদান

শোভনা সরকারের দেখানো পথেই হাঁটলেন দমদম ক্যান্টনমেন্টের সমর চক্রবর্তীর পরিবার। ব্রেনডেথের পর সমরবাবুর হৃদপিণ্ড, লিভার ও কর্নিয়া দানের সিদ্ধান্ত নেন তাঁরা। পরিবারের সবুজ সংকেত পাওয়ার পরই শুরু হয় তোড়জোড়। বাইপাসের ধারে একটি বেসরকারি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয় ৪৯ বছরের সমরবাবুকে। সেখানেই তাঁর দেহাংশ সযত্নে বার করে আনার কাজ হয়। তবে হৃদপিণ্ড প্রতিস্থাপন নিয়ে সমস্যা রয়েছে। কারণ হৃদপিণ্ড প্রতিস্থাপনের জন্য যে পরিকাঠামো থাকা দরকার তা কলকাতার কোনও সরকারি বা বেসরকারি হাসপাতালে নেই। ফলে এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে হৃদপিণ্ড দিল্লি বা চেন্নাই উড়িয়ে নিয়ে যাওয়ার কথা ভেবে দেখছেন চিকিৎসকেরা। সমরবাবুর পরিবারের তরফে জানান হয়েছে, সমরবাবু কিডনির সমস্যায় ভুগছিলেন। তাঁর ডায়ালিসিস চলছিল। দমদম নাগেরবাজারের একটি বেসরকারি হাসপাতালে গত সোমবার তাঁর ডায়ালিসিস হয়। মঙ্গলবার তাঁকে ডিসচার্জ করা হয়। বাড়ি ফেরানোর সময় হাসপাতালের মধ্যেই আচমকা বমি করতে শুরু করেন সমরবাবু। চিকিৎসকেরা তাঁকে পরীক্ষার পর জানান বড় ধরণের সেরিব্রাল অ্যাটাক। মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণ থেকে ব্রেন ডেথ হয়ে গেছে সমরবাবুর। একথা শোনার পরই প্রাথমিক ধাক্কা সামলে পরিবারের তরফে সমর চক্রবর্তীর দেহদানের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। হাসপাতালকে একথা জানানোর পরই শুরু হয় উদ্যোগ। সময়রবাবুর লিভার মঙ্গলবার সন্ধ্যায় এক মহিলার দেহে প্রতিস্থাপন করা হবে। কর্নিয়া দুটি দুজন দৃষ্টিশক্তিহীনকে পৃথিবীর আলো দেখাবে। হৃদপিণ্ডও সময়ে প্রতিস্থাপন করতে পারলে জীবন ফিরে পাবেন আর একজন মৃতপ্রায় মানুষ। সমর চক্রবর্তীর এই দান শহরের আরও মানুষকে ব্রেনডেথের পর অঙ্গদানে উৎসাহ জোগাবে বলেই মনে করছেন চিকিৎসকেরা।

Show More

Leave a Reply

Your email address will not be published.