Wednesday , February 20 2019
Health Tips

ত্বককে সুস্থ সতেজ রাখতে বেসনের কামাল

বাঙালিমাত্রই ভোজনপ্রিয়। ঘরে যদি বেসন থাকে, তবে তা দিয়ে নানা জিভে জল আনা তেলেভাজা বানাতে সিদ্ধহস্ত বঙ্গবাসী। আর শুধু বাংলার কথাই বা বলি কেন। গুজরাট, রাজস্থানের প্রধান খাবারগুলির একটা বড় অংশেরই মূল উপাদান বেসন। কিন্তু বেসন যে শুধু পেটে নয়, মুখেও দেওয়া যায়, সেকথা খেয়াল থাকেনা অনেকেরই। অথচ রান্নাঘরে বিবিধ মশলার পাশে বেসনের উপস্থিতি একপ্রকার বাধ্যতামূলক। বেসনে রয়েছে বিভিন্ন খনিজ পদার্থ, ক্যালসিয়াম, আয়রন, ক্যারোটিন, ভিটামিনসহ অনেক উপাদান। প্রাকৃতিক উপাদান হওয়ায় এর নেই তেমন কোনও পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া। খাবারের পাশাপাশি রূপচর্চার ক্ষেত্রে ও ত্বকের সমস্যা সমাধানেও বেসন খুব কার্যকরী ভূমিকা পালন করে।



৪ চামচ বেসন, ১ চামচ করে লেবুর রস এবং টক দইয়ের মিশ্রণ তৈরি করে মুখ বা শরীরের কালচে অংশে লাগালে কালো ভাব দূর হয়ে যায়। ১ চামচ দুধ, ২ চামচ করে বেসন আর চন্দন গুঁড়োর মিশ্রণ লাগালেও ত্বকের কালচে ভাব হালকা হয়ে আসে। ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়াতে সাহায্য করে বেসনের ২টি ফেসপ্যাক। এ দুটিই বানানো যায় ঘরোয়া জিনিসপত্র দিয়ে। একটি হল ৪ চামচ বেসন, ১ চামচ করে লেবুর রস এবং কাঁচা দুধের মিশ্রণ। অপরটি হল ২ চামচ বেসন, ১ চামচ শুকনো কমলালেবুর খোসার গুঁড়ো এবং আধ চামচ দুধের মিশ্রণ। ঘাড় এবং বগলের কালো দাগ দূর করতে পরিমাণ মত বেসন, টক দই ও কাঁচা হলুদ বাটার মিশ্রণের ব্যবহারে ভালো ফল পাওয়া যায়।

তৈলাক্ত ত্বকের মলিনতা কাটাতে ৩ চামচ বেসনের সঙ্গে ২ চামচ কাঁচা দুধ বা ২ চামচ টক দই মিশিয়ে মুখে লাগালে উপকার পাওয়া যায়। এই মিশ্রণ ত্বকের অতিরিক্ত তেল কমানোর সাথে সাথে ত্বকের ময়লা দূর করে। তৈলাক্ত ত্বক ব্রণের আঁতুড়ঘর। এই সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে ২ চামচ করে বেসন ও লাল চন্দনের গুঁড়ো, ১ চামচ দুধ মিশিয়ে তৈরি পেস্ট মুখে লাগাতে পারেন।

অনেকে মুখে অবাঞ্ছিত লোমের কারণে বিব্রত বোধ করেন। তাঁরা মেথি গুঁড়ো, বেসন ও গোলাপ জলের মিশ্রণ মুখের যেসব জায়গায় লোম রয়েছে সেখানে ব্যবহার করে দেখতে পারেন।

ভালো ফলাফলের জন্য সপ্তাহে ৩-৪ বার মিশ্রণগুলি ব্যবহার করে দেখতে পারেন। প্রতিটি মিশ্রণ বা ফেসপ্যাক ১৫-২০ মিনিটের বেশি রাখবেন না। বেসন বেশিক্ষণ মুখে বা শরীরে রাখলে তা ত্বককে শুষ্ক করে দেয়। ১৫-২০ মিনিট পড়ে বেসনের ফেসপ্যাক শুকিয়ে এলে পরিস্কার ঠান্ডা জল দিয়ে মুখ ধুয়ে নিতে হবে। তারপর নরম কাপড় দিয়ে মুখ পরিস্কার করে ময়শ্চারাইজার ব্যবহার করতে হবে। তবে বেসনের ফেসপ্যাক ব্যবহারের আগে জেনে নিন আপনার ত্বকের চরিত্র। বেসন, দুধ বা টক দইয়ে যাঁদের অ্যালার্জি তাঁরা এই ধরনে প্যাক এড়িয়ে চলুন। চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে বেসন ব্যবহার করুন।



Check Also

Injection

ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের প্রথম পর্যায়ে পাশ করল ম্যালেরিয়ার টিকা

মাতৃত্বকালীন ম্যালেরিয়া সারা বিশ্ব জুড়েই এক বড় চিন্তার কারণ। যা একাধারে মা ও শিশুর জন্য ভয়ংকর হয়। এই সমস্যা দূর করতে দীর্ঘ দিন ধরেই গবেষণা চলছিল।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *