National

হয় ১ কোটি, নয়তো বয়কট, পঞ্চায়েতের ফয়সালায় আতান্তরে পরিবার

হয় নগদ ১ কোটি টাকা দাও, নয়তো সামাজিক বয়কটের সম্মুখীন হও। পঞ্চায়েতের ফয়সালায় চরম বিপাকে পড়েছে একটি পরিবার। পুলিশের কাছে গিয়েও ফল হয়নি, দাবি পরিবারের।

২ বন্ধু মিলে একটি সম্পত্তি ক্রয় করেছিলেন করোনা থাবা বসানোর আগে। এরপর দেশে করোনা ছড়ায়। করোনার জেরে ওই সম্পত্তি থেকে একটি পয়সাও আসেনি। দিনের পর দিন ক্ষতিই হতে থাকে।

আর্থিক দিক থেকে প্রায় দেউলিয়া হয়ে ২ বন্ধুর একজন মহেশ আত্মহননের পথ বেছে নেন। এদিকে মহেশের মৃত্যুর পর তাঁর মৃত্যু হয়েছে অপর বন্ধু জিতেন্দ্রর কারণে বলে দাবি করে পুলিশের কাছে মামলা দায়ের করেন মহেশের স্ত্রী। কিন্তু তাতে জামিন পেয়ে যান জিতেন্দ্র। এবার জিতেন্দ্রর বিরুদ্ধে পঞ্চায়েতের দ্বারস্থ হন ওই মহিলা।

২৮ জন পঞ্চায়েত সদস্য মিলে মহেশের স্ত্রীর আনা অভিযোগ নিয়ে ফয়সালা করতে বসেন। তাতে তাঁরা সিদ্ধান্তে জিতেন্দ্রর মা-বাবাকে জানান তাঁদের পরিবারকে মহেশের স্ত্রীর হাতে ১ কোটি টাকা তুলে দিতে হবে।

যদি জিতেন্দ্রর পরিবার এই টাকা মহেশের স্ত্রীর হাতে তুলে না দেয় তাহলে তাদের সামাজিকভাবে বয়কট করা হবে। কোনও দোকান, বাজারে ওই পরিবার জিনিসপত্র কিনতে পারবেনা। তাদের সঙ্গে কেউ কথা বলবেন না।


কেউ যদি ওই পরিবারকে সাহায্যের জন্য হাত বাড়ান বা তাদের সঙ্গে কথা বলেন, তাহলে তাঁকে বা তাঁদের ৫১ হাজার টাকার জরিমানা গুনতে হবে।

পঞ্চায়েতের এমন ফয়সালায় দিশেহারা পরিবার এরপর মামলা দায়ের করে। পুলিশের কাছে অভিযোগ জানানো হয়। জিতেন্দ্রর পরিবারের তরফে থানায় ২৮ জন পঞ্চায়েত সদস্যের বিরুদ্ধেই অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।

গত ১২ জুলাই অভিযোগ দায়ের হলেও পুলিশ এখনও কোনও পদক্ষেপ করেনি। পুলিশের তরফে জানানো হয়েছে তদন্ত চলছে।

আপাতত আতান্তরে দিন কাটাচ্ছে জিতেন্দ্রর পরিবার। ঘটনাটি ঘটেছে রাজস্থানের সোওয়াই মাধোপুরের সিকরোলি গ্রামে। — সংবাদ সংস্থার সাহায্য নিয়ে লেখা

Show Full Article
Back to top button