Kolkata

দুর্ঘটনায় লাগাম দিতে একগুচ্ছ নির্দেশ মুখ্যমন্ত্রীর

রাজ্যের ট্রাফিক আইন সংশোধনে গুরুত্ব দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। শুক্রবার নজরুল মঞ্চে কলকাতা ট্রাফিক পুলিশের একটি অনুষ্ঠানে যোগ দিতে গিয়ে সড়ক নিরাপত্তায় মোটর ভেহিকলস আইন পরিবর্তনের পক্ষেও সওয়াল করেন মুখ্যমন্ত্রী। কেন্দ্র আইন করলেও যদি রাজ্যে একটা দুর্ঘটনা ঘটে তাহলে রাজ্য সরকারের দিকে আঙুল ওঠে। তাতে চাপে পড়ে রাজ্য সরকারই। তাই সড়ক আইনে রাজ্যগুলির নিজের মত কিছু আইন প্রণয়নের অধিকার থাকা উচিত বলে দাবি করেন তিনি। এদিন বেপরোয়া গাড়ি চালানো বন্ধ করতেও ট্রাফিক পুলিশকে উদ্যোগী হওয়ার নির্দেশ দেন তিনি। সেফ ড্রাইভ, সেভ লাইফ থিম সং তৈরি করে তা বিভিন্ন উৎসব, অনুষ্ঠানে বাজানোরও নির্দেশ দেন মুখ্যমন্ত্রী। পুলিশকে এ বিষয়ে উদ্যোগ নিতে বলেন তিনি। এমনকি পথ সুরক্ষার ক্ষেত্রে একবছরের একটি প্রতিযোগিতারও এদিন সূচনা করেন মুখ্যমন্ত্রী। যে ব্লকে সামনের এক বছরে সবচেয়ে কম দুর্ঘটনা ঘটবে তাদের পুরস্কৃত করবে সরকার। আর যেখানে সবচেয়ে বেশি দুর্ঘটনা ঘটবে তাদের কালো তালিকাভুক্তও করা হবে। এমনকি ভাল কাজ দেখাতে পারলে সেই ট্রাফিক পুলিশের পরিবারের একজনকে চাকরি দেওয়ার মত পুরস্কারও সরকার দিতে পারে বলে জানিয়েছেন তিনি। এদিন বেপরোয়া গাড়ি চালানো নিয়েও কড়া অবস্থান নেন মুখ্যমন্ত্রী। কলকাতার সব উড়ালপুলে রাত ১০টার পর বেপরোয়াভাবে বাইক রেস করা যাবে না বলে জানিয়েছেন তিনি। বাইক চালানোর সময় হেলমেটও আবশ্যিক করার ওপর জোর দেন মুখ্যমন্ত্রী। যাঁদের হেলমেট নেই তাঁদের হেলমেট কিনে নেওয়ার জন্য তিনমাস সময় বেঁধে দিয়েছেন তিনি। এমনকি যাঁরা হেলমেট কেনার অবস্থায় নেই, তাঁদের অর্থনৈতিক অবস্থার কথা মাথায় রেখে সরকারের তরফে কোনও সাহায্য করা যেতে পারে কিনা তাও পরিবহণ দফতর ও পুলিশকে একসঙ্গে বসে সিদ্ধান্ত নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। পাশাপাশি রাজ্যে যে কোনও ধরণের অপরাধমূলক কাজে লাগাম দিতে রাস্তার ওপর নজরদারি বাড়ানোর পরামর্শ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। তাঁর মতে, যে কোনও অপরাধই হোক না কেন অপরাধীদের সড়কপথের সাহায্য নিতেই হয়। তাই সেখানে নজরদারি বাড়ালে অপরাধ দ্রুত কমানো সম্ভব হবে।

Show More

Leave a Reply

Your email address will not be published.