Lifestyle

বাড়িতে বসেই বর্ষায় ত্বকের যত্ন নেবেন কীভাবে, জানাচ্ছেন বিশেষজ্ঞেরা

বর্ষার দিনে মানুষের ত্বকের বিশেষ যত্নের দরকার পড়ে। বাড়িতে বসেই তা কীভাবে করা যাবে জানতে চান অনেকেই। তারই হদিশ দিচ্ছেন বিশেষজ্ঞেরা।

গ্রীষ্মের পর বর্ষা নেমে তীব্র গরমের হাত থেকে রেহাই যেমন মেলে তেমনই বর্ষা বয়ে আনে নানা অসুখবিসুখ। বর্ষায় ত্বকেরও নানা ক্ষতি হয়।

ত্বক তার উজ্জ্বলতা হারায়। মুখে ব্রণ তৈরি হয়। নিস্তেজ মনে হয় মুখ। এখন আবার করোনা থেকে বাঁচতে মাস্ক আবশ্যিক।

তাতে মুখে ব্যাকটেরিয়া ও ছত্রাক জনিত চামড়ার সমস্যা বাড়ছে। এসব থেকে রক্ষা পাওয়ার উপায় কিন্তু খুব শক্ত নয়। সহজেই মিলতে পারে রেহাই।

বিশেষজ্ঞেরা জানাচ্ছেন, বর্ষায় আর্দ্রতার কারণে মুখের তৈলাক্ত ভাব বেড়ে যায়। যা ময়লাকে মুখে জমা হতে সাহায্য করে।

এর থেকে অনেক সময় মুখে ছোট ছোট লালচে দানার সৃষ্টি হয়। এসব থেকে মুক্তি পেতে দিনে অন্তত ২ বার ক্লিনজার দিয়ে মুখ ধুতে হবে। তার আগে বেছে নিতে হবে সেই ক্লিনজার যা মুখের চামড়ার ধরনের সঙ্গে যায়।

বর্ষায় মুখের টি-জোনে তৈলাক্তভাব বাড়লেও চিবুক, গাল ও চোয়ালে অনেক সময় চামড়ায় শুকনো ভাব দেখা যায়। এজন্য বর্ষায় উপকারি ময়েশ্চারাইজার। তবে ময়েশ্চারাইজার হতে হবে ওয়াটার বেসড। এতে মুখের চামড়ার সামঞ্জস্য বজায় থাকে।

বর্ষায় প্রতি সপ্তাহে কিছুটা সময় বার করে মুখের যত্ন নেওয়া জরুরি বলেই জানাচ্ছেন বিশেষজ্ঞেরা। তাঁদের মতে, সপ্তাহে অন্তত একদিন মুখে মাস্কিং জরুরি। এতে চামড়ার জেল্লা বজায় থাকে।

ক্লে, পিল অফ বা সিট মাস্ক পাওয়া যায় দোকানে। যিনি ব্যবহার করছেন তাঁর মুখের চামড়ার ধরনের ওপর নির্ভর করবে তিনি কী ধরণের মাস্ক ব্যবহার করবেন। সঠিক ধরন বেছে নিয়ে প্রতি সপ্তাহে একবার মাস্কিং জরুরি।

বর্ষায় অনেক সময় আকাশ মেঘলা থাকে। তা সত্ত্বেও বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ বাইরে বার হলেই সানস্ক্রিন ব্যবহার করা উচিত। যা সূর্যের হানিকারক রশ্মি থেকে মুখের চামড়াকে রক্ষা করে।

এসপিএফ ১৫ থেকে ৫০-এর মধ্যে সানস্ক্রিন পাওয়া যায়। মুখের চামড়ার সম্পূর্ণ যত্ন অসম্পূর্ণ থেকে যাবে যদিনা সানস্ক্রিন ব্যবহার করা হয়।

বর্ষায় খুব চড়া মেকআপ থেকে দূরে থাকার পরামর্শ দিচ্ছেন বিশেষজ্ঞেরা। তাঁদের মতে হাল্কা মেকআপ বর্ষার জন্য ভাল। অবশ্যই নিজেকে সমাজে তুলে ধরার মতন মেকআপটুকু করতে হবে। তবে নজর রাখতে হবে তা যেন চড়া না হয়।

চামড়া ভাল থাকে তার পিএইচ লেভেল ঠিক থাকলে। ঋতু অনুযায়ী এই পিএইচ লেভেলকে ঠিক রাখাই হল চামড়াকে ভাল রাখার আসল চাবিকাঠি। — সংবাদ সংস্থার সাহায্য নিয়ে লেখা

Show More

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button