SciTech

ইসরোর মুকুটে নতুন পালক, সূর্য দেখায় বড় সাফল্য পেল আদিত্য

চাঁদে চন্দ্রযান-৩-এর সফল অবতরণ ভারতকে গতবছর বিশ্বে এক অন্য সম্মান এনে দিয়েছে। তারপরই ফের ভারত সাফল্য পায় আদিত্য-এল১-কে সূর্যের দিকে পাঠিয়ে।

২০২৩ সালের ২ সেপ্টেম্বর ভারত থেকে পাড়ি দেয় আদিত্য-এল১। লক্ষ্য ছিল সূর্যের কাছে পৌঁছে যাওয়া। তারপর সর্বক্ষণ সূর্যের গতিবিধির ওপর নজরদারি করা। সেইমত পাড়ি দেয় আদিত্য।

লক্ষ্য ছিল এল১ নামে মহাকাশের এমন একটি স্থানে পৌঁছনো যেখানে সূর্য ও পৃথিবীর মাধ্যাকর্ষণ সমান। এই বিন্দুতে পৌঁছলে সূর্যের আকর্ষণ ও পৃথিবীর আকর্ষণ সমান হওয়ায় যানটি সূর্য বা পৃথিবীর আকর্ষণ থেকে মুক্ত থাকবে।

এই বিন্দু থেকে সূর্যকে সারাক্ষণ নজরেও রাখতে পারবে আদিত্য। এই বিন্দুকে বলা হয় এল১ বিন্দু। এই এল১-এর একটি কক্ষ রয়েছে। যাকে বলা হয় হ্যালো অরবিট। এই অরবিটের ৩টি কোণা রয়েছে। এই ৩টি কোণা ছোঁয়া মানে আদিত্য একবার সেটিকে প্রদক্ষিণ করল।

গত ৬ জানুয়ারি এল১ বিন্দুতে পৌঁছলেও তার কক্ষে একবার প্রদক্ষিণ সম্পূর্ণ করতে আদিত্যর লাগল ১৭৮ দিন। তবে তা এল১-কে একবার প্রদক্ষিণটা সম্পূর্ণ করতে পারল। এটাকে বড় সাফল্য হিসাবেই দেখছে ইসরো।


আদিত্য-এল১ ওই এল এক বিন্দু থেকে সূর্যের ফোটোস্ফিয়ার, ক্রোমোস্ফিয়ার পর্যবেক্ষণ করবে। সূর্যের বাইরের স্তর বা করোনা-কেও প্রখরভাবে পর্যবেক্ষণ করবে।

সেখানে কি ঘটছে তার দিকে সর্বক্ষণ নজর রাখবে আদিত্য-এল১। সেটাই নিরন্তর করে চলেছে আদিত্য। যা ভারতীয় মহাকাশ বিজ্ঞানীদের সূর্য সম্বন্ধে আরও অনেক নতুন তথ্য জানতে সাহায্য করছে। — সংবাদ সংস্থার সাহায্য নিয়ে লেখা

Show Full Article

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button