World

১৮টা জনসভা থেকে ছড়াল ৩০ হাজার সংক্রমণ

১৮টা জনসভার জেরে নতুন করে সংক্রমণের শিকার হয়েছেন ৩০ হাজার মানুষ। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের দিকে আঙুল তুলল স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়।

ওয়াশিংটন : মঙ্গলবার হতে চলেছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচন। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প লড়ছেন দ্বিতীয়বার নির্বাচিত হওয়ার লক্ষ্যে। অন্যদিকে তাঁর বিপরীতে কোমর বেঁধে নেমেছেন জো বাইডেন।

সমীক্ষা বলছে পাল্লা ভারী বাইডেনের। ডোনাল্ড ট্রাম্প অবশ্য লড়াইয়ে থাকতে চেষ্টার ত্রুটি রাখেননি। নির্বাচনী প্রচারে সর্বশক্তি দিয়ে ঝাঁপিয়েছেন তিনিও। আমেরিকায় জুন থেকে সেপ্টেম্বরের মধ্যে ১৮টি জনসভা করেছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। আর সেখানেই তাঁর দিকে আঙুল তুলেছে স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়।

স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়-এর পর্যবেক্ষকরা দাবি করেছেন ডোনাল্ড ট্রাম্পের ১৮টি জনসভা থেকে সে দেশে আরও ৩০ হাজার মানুষ করোনার শিকার হয়েছেন।

২০ জুন থেকে ২৩ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ১৮টি জনসভা করেছেন ট্রাম্প। তারমধ্যে ৩টি ছিল ইনডোরে। বাকি ১৫টি খোলা জায়গায় জনসভা হয়েছে। এই প্রতিটি জনসভা কার্যত করোনাকে ছড়িয়ে পড়তে সাহায্য করেছে। জো বাইডেনের দল ট্রাম্পের এই জনসভাগুলিকে সুপার স্প্রেডার বলে ব্যাখ্যা করেছে।


স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের তরফে দাবি করা হয়েছে, আমেরিকায় স্বাস্থ্যবিধি মানার কথা বারবার বলা হচ্ছে। মুখে মাস্ক আবশ্যিক বলা হয়েছে। ২ জনের মধ্যে দূরত্ব মেনে চলার কথা বলা হয়েছে।

কিন্তু এসব জনসভায় দূরত্ব মানাই হয়নি। যা করোনাকে হুহু করে ছড়িয়ে পড়ার রাস্তা খুলে দিয়েছে। এখানে উপস্থিত থাকা মানুষজনকে ট্রাম্পের জনসভায় যোগদানের জেরে বড় মূল্য চোকাতে হয়েছে।

ঠিক ভোটের আগেই দেশের প্রায় ৩০ হাজার মানুষের করোনা হওয়ার দায় ট্রাম্পের জনসভার ঘাড়ে চাপায় পাল্টা চাপে পড়েছে ট্রাম্প শিবির। ট্রাম্পের প্রচারের প্রেস সেক্রেটারি অবশ্য জানিয়েছেন যে জনসভাগুলির কথা বলা হচ্ছে সেখানে ঢোকার আগে প্রত্যেকের শরীরের তাপমাত্রা পরীক্ষা করা হয়েছে। প্রত্যেকের মুখে যাতে মাস্ক থাকে সেদিকে কঠোর নজর দেওয়া হয়েছে।

এছাড়াও প্রেস সেক্রেটারির বক্তব্য দেশের প্রেসিডেন্ট কিছু বলতে চাইলে তা শুনতে মানুষের জমায়েত করতেই পারেন। তা সংবিধান স্বীকৃত। যদিও ট্রাম্প শিবির যাই বলুক না কেন, ভোটের দরজায় দাঁড়িয়ে এত বড় অভিযোগ ওঠা ট্রাম্পকে কিছুটা হলেও ব্যাকফুটে ঠেলে দিল। — সংবাদ সংস্থার সাহায্য নিয়ে লেখা

Show Full Article

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button