National

যাত্রী পরিবহণে দেশে প্রথম কোনও শহরে চালু হচ্ছে রোপওয়ে পরিষেবা

পাহাড়ি এলাকা বা পর্যটনে রোপওয়েকে কাজে লাগানো হয় অনেক জায়গায়। কিন্তু এই প্রথম কোনও শহরের বুকে চালু হতে চলেছে রোপওয়ে পরিষেবা।

যাত্রী পরিবহণে শহরে ভরসা বাস, ট্যাক্সি, মেট্রো রেল, মোনোরেল বা যেখানে জলপথের সুবিধা রয়েছে সেখানে স্টিমার। ব্যস্ত শহরে অট্টালিকায় ঢাকা প্রায় না দেখতে পাওয়া আকাশের বুকে ভেসেও যে মানুষ এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে পৌঁছতে পারেন সেকথা এতদিন ভাবা হয়নি। এবার সেটাই করা হতে চলেছে।

পর্যটনে রোপওয়েকে কাজে লাগানো হয়েছে ভারতের বিভিন্ন প্রান্তে। রোপওয়েকে কাজে লাগাতে বেছে নেওয়া হয়েছে মূলত পাহাড়ি এলাকা। কিন্তু এবার শহরের মধ্যেই পরিবহণের কাজে লাগানো হতে চলেছে রোপওয়েকে।

ভারতের অতিপ্রাচীন শহর বারাণসী। যে শহরের নামের সঙ্গে ভারতীয় আধ্যাত্ম্য চেতনাও জড়িয়ে রয়েছে ওতপ্রোত ভাবে। সেই বারাণসীতে এবার রোপওয়ে চালু হতে চলেছে।

বারাণসীর বারাণসী জংশন বা ক্যান্টনমেন্ট রেলওয়ে স্টেশন থেকে গোদোলিয়া পর্যন্ত যাতায়াত করা যাবে রোপওয়েতে। এতে ঘিঞ্জি শহরের ভিড়ও এড়ানো যাবে, সময়ও বাঁচবে। আবার এই দড়ি নির্ভর ভ্রমণ পরিবেশ বন্ধু একটি পরিবহণও বটে।

২২০টি কেবলকার প্রাথমিক পর্যায়ে ব্যবহার করা হতে চলেছে। কেন্দ্রীয় জল শক্তি মন্ত্রকের সংস্থা ডব্লিউএপিসিওএস এই কাজের দায়িত্বে রয়েছে।

প্রাথমিক পর্যায়ে খরচ পড়ছে ৪০০ কোটি টাকা। প্রতিটি কেবলকারে ১০ জনের বসার বন্দোবস্ত থাকবে। প্রতি দেড় মিনিট অন্তর কেবলকার চলবে। মাঝে পড়বে ৪টি স্টেশন। সবকটি স্টেশন হবে ১১ মিটার উঁচুতে।

এই পরিষেবা চালু করতে ২৯টি বাড়ি ভাঙা পড়তে পারে বলেও ইঙ্গিত মিলেছে। তবে ঠিক কবে থেকে এই পরিষেবা চালু হবে তা এখনও পরিস্কার নয়। — সংবাদ সংস্থার সাহায্য নিয়ে লেখা

Show More

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button