Lifestyle

রাস্তায় বসল এক অতিকায় সেফটিপিন, পিছনে রয়েছে অন্য বার্তা

রাস্তার মোড়ে একটা উঁচু বেদী। তার ওপর বসানো একটি স্টিলের তৈরি সেফটিপিন। যা আদপে একটি মানুষকে বারবার মনে করিয়ে দেয়।

রাস্তায় বসা একটি সেফটিপিন। যার আশপাশ দিয়ে যেতে গেলেই তা নজর কেড়ে নিচ্ছে। মানুষকে অবাক করে চলেছে। আর যতবার সেই সেফটিপিনের দিকে নজর পড়ছে, ততবারই একটি কথা মানুষের মনে পড়ছে।

এমন এক বার্তা যা কারও ভোলা উচিত নয়। যাতে মানুষ সেকথা কখনও ভুলে না যান তা নিশ্চিত করছে এই দানবাকৃতি সেফটিপিন।

স্বাস্থ্য বিষয়ক সমস্যা নিয়ে এখনও ভারতের নানা প্রান্তে মহিলাদের অসম্মানের মুখে পড়তে হয়। কিন্তু দেশের সব মহিলার সম্মানের সঙ্গে স্বাস্থ্য পরিষেবা পাওয়ার অধিকার রয়েছে।

অনেক সময় তাঁরা তা পান না। অনেক বঞ্চনা, অবহেলা বা আগে থেকেই তাঁদের শারীরিক সমস্যা নিয়ে কোনও সন্দেহের মুখে পড়ে যাওয়ার ঘটনা ঘটতে থাকে।

কখনও তা হয় পরিবারের মধ্যে। কখনও চিকিৎসা করাতে গিয়ে। চিকিৎসা পেতে গিয়ে মহিলাদের অসম্মানের মুখে পড়ার বিরুদ্ধেই নীরবে বার্তা পৌঁছে দিচ্ছে এই সেফটিপিন। যা পাটনা শহরের রামনগরী মোড় চকে বসেছে।

স্বাস্থ্য পরিষেবা পেতে গিয়ে মহিলারা নানা সমস্যার মুখে পড়েন। তাঁদের সেই অভিজ্ঞতার কথা অনেক মহিলা শেয়ারও করেছেন।

যেমন এক তরুণী জানিয়েছেন, তাঁর ৩ মাস ধরে ঋতুস্রাব বন্ধ হয়ে গিয়েছিল। চিকিৎসকের কাছে যাওয়ার পর কিছু পরীক্ষা না করেই চিকিৎসক তাঁকে সন্তানসম্ভবা বলে ধরে নেন। একমাত্র সেই সংক্রান্ত পরীক্ষাই করতে দেন।

তরুণীর মতে, আগে থেকেই চিকিৎসক ধরে নিলেন যে তিনি সন্তানসম্ভবা। অন্য কোনও সমস্যার কারণে এটা হচ্ছেনা। এটা ওই তরুণীর কাছে অসম্মানের লেগেছিল। তিনি কোনও পরীক্ষা না করিয়েই বাড়ি ফিরে আসেন। কারণ তিনি জানতেন এমন কিছু নয়।

ভারতে এই প্রথম এই সেফটিপিনের হাত ধরে মহিলাদের সম্মানজনক স্বাস্থ্য পরিষেবা পাওয়ার অধিকারের সমর্থনে আওয়াজ উঠল। — সংবাদ সংস্থার সাহায্য নিয়ে লেখা

Show More

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button