Kolkata

জেলের পথে কেঁদে ফেললেন ফিরহাদ, সকালে হাসপাতালে সুব্রত

প্রেসিডেন্সি জেলে নিয়ে যাওয়ার পথে কেঁদে ফেললেন মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম। কলকাতার মানুষের জন্য কাজ করতে না পারার বেদনা উঠে আসে তাঁর গলায়।

সোমবার রাতেই নিম্ন আদালতের জামিনের মঞ্জুরিতে স্থগিতাদেশ দেয় কলকাতা হাইকোর্ট। তারপরেই শুরু হয় নারদ মামলায় ৪ নেতাকে প্রেসিডেন্সি সংশোধনাগারে নিয়ে যাওয়ার প্রস্তুতি।

রাত দেড়টায় তাঁদের জেলে নিয়ে যাওয়ার উদ্যোগ নেওয়া হয়। নিয়ে যাওয়ার সময় সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম জানান, তিনি করোনা পরিস্থিতির মোকাবিলায় কাজ করছিলেন। কিন্তু তাঁকে কলকাতার মানুষকে বাঁচাতে দেওয়া হল না। এরপরই তিনি কান্নায় ভেঙে পড়েন।

তাঁর জামিন পাওয়ার অধিকার খর্ব করা হয়েছে বলেও অভিযোগ করেন ফিরহাদ হাকিম। প্রশ্ন তোলেন শুভেন্দু অধিকারী ও মুকুল রায়কে গ্রেফতার না করা নিয়ে।

রাতে ৪ নেতাকে নিয়ে যাওয়া হয় জেলে। সেখানেই অসুস্থ হয়ে পড়েন তৃণমূল বিধায়ক মদন মিত্র ও প্রাক্তন মেয়র তথা বিজেপির সঙ্গে দূরত্ব টানা শোভন চট্টোপাধ্যায়। তাঁদের এসএসকেএম হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।


রাতটা কাটালেও সকালে রাজ্যের আর এক মন্ত্রী সুব্রত মুখোপাধ্যায় অসুস্থ বোধ করেন। ফলে তাঁকেও এসএসকেএম হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ৩ জনকেই উডবার্ন ওয়ার্ডে রাখা হয়েছে।

এদিকে রাজ্যের ৪ হেভিওয়েট নেতাই জানিয়েছেন তাঁদের আইনের প্রতি বিশ্বাস আছে। এদিন হাইকোর্টের কাছে রায় পুনর্বিবেচনার আর্জি জানান ৪ নেতার আইনজীবীরা।

Show Full Article
Back to top button