Health

মহারাষ্ট্রের পর এবার আরও এক রাজ্যে ব্ল্যাক ফাঙ্গাসের থাবা

মহারাষ্ট্রে ব্ল্যাক ফাঙ্গাস কার্যত করোনা অতিমারিতে মরার ওপর খাঁড়ার ঘায়ের পরিস্থিতি সৃষ্টি করেছে। এবার এই রোগের দেখা মিলল দেশের আরও একটি রাজ্যে।

ব্ল্যাক ফাঙ্গাস এবার ভারতেও ছড়াতে শুরু করল। যা করোনা অতিমারির দাপটের ভয়ংকরতাকে আরও ভয়ংকর করে তুলছে। সাধারণত করোনা থেকে সেরে ওঠা বা সেরে উঠছেন এমন রোগীদের ক্ষেত্রে ব্ল্যাক ফাঙ্গাস রোগ দেখা যায়।

এটা বিরল রোগের তালিকায় পড়ে। কিন্তু ইতিমধ্যেই মহারাষ্ট্রে প্রায় ২ হাজারের বেশি মানুষের দেহে ব্ল্যাক ফাঙ্গাস রোগ পাওয়া গিয়েছে। এরমধ্যে থানেতে ২ জনের মৃত্যুও হয়েছে ব্ল্যাক ফাঙ্গাসে।


পড়ুন আকর্ষণীয় খবর, ডাউনলোড নীলকণ্ঠ.in অ্যাপ

ব্ল্যাক ফাঙ্গাস-এর উপসর্গগুলি হল মাথা ব্যথা, চোখের তলার বা কাছে ব্যথা, জ্বর আসা, সাইনাসের কাছে সর্দি জমা এবং দৃষ্টিশক্তি ক্ষীণ হয়ে আসা।

ব্ল্যাক ফাঙ্গাস সাধারণত সাইনাস, মস্তিষ্ক ও ফুসফুসের ভয়ংকর ক্ষতি করছে। যা অনেক ক্ষেত্রে প্রাণও কেড়ে নিতে পারে। এবার করোনার পর সেই দ্বিতীয় আতঙ্ক মহারাষ্ট্রের সীমা পার করে পাওয়া গেল মধ্যপ্রদেশেও।

মধ্যপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী শিবরাজ সিং চৌহান নিজেই একথা স্বীকার করেছেন। তিনি এও জানিয়েছেন তাঁর রাজ্যে কমপক্ষে ৫০ জনের দেহে এই ব্ল্যাক ফাঙ্গাস রোগ দেখতে পাওয়া গিয়েছে।

যা চিন্তার ভাঁজ আরও পুরু করেছে। একে করোনা নিয়ে নাজেহাল পরিস্থিতি, তার মধ্যে এই নয়া উপদ্রবে চিন্তায় চিকিৎসকেরা। তাঁরা জানাচ্ছেন মিউকোরমাইকোসিসে মৃত্যুর হার ৮০ শতাংশেরও বেশি।

করোনাজয়ীদের মধ্যে যাঁরা ক্যান্সার, ডায়াবেটিস ও এডসের মত অসুখে আগে থেকেই আক্রান্ত ছিলেন তাঁদেরই মিউকোরমাইকোসিসে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা বেশি দেখা যাচ্ছে।

একে শনাক্ত করে চিকিৎসা না শুরু করলে ২ দিনের মধ্যেই শরীরের বিভিন্ন অঙ্গ, বিশেষত মস্তিষ্কের ক্ষতি করতে পারে। যা থেকে মৃত্যুর সম্ভাবনা অনেকটাই বেড়ে যায়।

ব্ল্যাক ফাঙ্গাসের হানায় মানুষের শরীরে দেখা দেয় মিউকোরমাইকোসিস সংক্রমণ। অতিমারির আগে ব্ল্যাক ফাঙ্গাসের সংক্রমণ খুব বেশি দেখা যেত না, তবে করোনা থেকে সুস্থ হয়ে ওঠা মানুষের শরীরে এর হানা অস্বাভাবিক ভাবে বেড়ে গিয়েছে। — সংবাদ সংস্থার সাহায্য নিয়ে লেখা

Show Full Article
Back to top button