Health

লকডাউন ডেকে আনল অন্য রোগ

লকডাউনের জেরে দীর্ঘদিন গৃহবন্দি ছিলেন মানুষ। যা কার্যত সকলের অলক্ষ্যে জন্ম দিয়েছে এক অন্য রোগের। এমনই দাবি করেছে একটি গবেষণা।

লন্ডন : গতবছর একটা বড় সময় করোনা ঠেকাতে বিশ্বজুড়ে চলেছে লকডাউন। এই লকডাউন চলাকালীন গৃহবন্দি মানুষ হঠাৎ করেই হাতে পেয়ে গিয়েছিলেন অনেকটা সময়। এতটা সময় কি যে করবেন ভেবে উঠতে পারেননি অনেকেই।

অফুরন্ত সময়ে পছন্দের মুখরোচক খাবারের স্বাদ চাখার সাথে সাথে ওয়েব সিরিজ আর সিনেমা ‘বিঞ্জ ওয়াচ’ করতে গিয়ে কখন যে বিঞ্জ ইটিং ডিসঅর্ডার বাঁধিয়ে ফেলেছেন বুঝতেই পারেননি অনেকে। লকডাউনে মানুষের মধ্যে খুব বেশিমাত্রায় ইটিং ডিসঅর্ডার দেখা গেছে। সাম্প্রতিক একটি গবেষণায় উঠে এসেছে এমনই চমকপ্রদ তথ্য।

এই ইটিং ডিসঅর্ডারে খাওয়ার সময় কোনও সমস্যা হয়না। সমস্যা শুরু হয় খাবার খাওয়ার পর। অপরাধ বোধে ভুগতে থাকেন মানুষ। তখনই বমি করে খাবার শরীর থেকে বের করে দেওয়া, অত্যধিক পরিমাণে শরীরচর্চার মত প্রবণতা দেখা দিতে শুরু করে।

ব্রিটেনের অ্যাঙ্গলিয়া রাসকিন বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষক মাইক ট্রট বলেছেন, কোভিড-১৯-ই ইটিং ডিসঅর্ডারের জন্য দায়ী এমনটা নয়। তবে চিন্তা ভাবনা, মানসিক চাপ থেকে বাঁচার সহজ রাস্তা হিসেবে মানুষ এই সময় খাবারকে নিজের সঙ্গী করেছিলেন। স্বভাবতই ইটিং ডিসঅর্ডার সমস্যা প্রকট হয়ে উঠেছে বিগত ১ বছরে।


গবেষণাপত্রটি প্রকাশিত হয়েছে সাইকিয়াট্রি রিসার্চ জার্নালে। গবেষণার জন্য ৩৭ বছর গড় আয়ুর ৩১৯টি হেলথ ক্লাবের সদস্যের খাদ্য সংক্রান্ত আচরণ পর্যবেক্ষণ করা হয়।

তাঁদের ওপর করা পরীক্ষায় দেখা গেছে ২০১৯-এর তুলনায় ২০২০-তে ইটিং ডিসঅর্ডারের পরিমাণ তাৎপর্যপূর্ণ ভাবে বেড়েছে। — সংবাদ সংস্থার সাহায্য নিয়ে লেখা

Show Full Article
Back to top button