Health

টিকা নিতে চাইলে ছাড়তে হবে মদ্যপান

করোনা প্রতিষেধক টিকা গ্রহণের পর ছাড়তে হবে মদ্যপান। অবশ্যই সারা জীবনের জন্য নয়। তবে একটা সময় পর্যন্ত মদ্যপান করা যাবে না। জানিয়ে দিল রাশিয়া।

নয়াদিল্লি : করোনা প্রতিষেধক টিকা-র কার্যকারিতা শুরু হওয়া পর্যন্ত সকলকে অপেক্ষা করতে হবে। ওই সময়ে যাবতীয় সুরক্ষাবিধিও মানতে হবে। টিকা নিয়েছি মানে এই নয় যে কিছুই আর মানার দরকার নেই।

মানতে হবে দূরত্ববিধি। মানতে হবে মুখে মাস্ক রাখা। মানতে হবে নিয়মিত হাত ধোওয়া এবং স্যানিটাইজার ব্যবহার। ভিড়ভাড় জায়গাও এড়িয়ে চলতে হবে।

শরীরের রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা নষ্ট করতে পারে এমন কোনও ওষুধও এই সময়ে খাওয়া চলবে না। এছাড়া মদ্যপানের অভ্যাস থাকলে সেটাও সাময়িকভাবে পরিত্যাগ করতে হবে। অন্তত টিকা গ্রহণের ৪২ দিন পর্যন্ত সবই মেনে চলতে হবে। তবেই টিকার সুফল মিলবে।

রাশিয়ায় স্পুটনিক ভি টিকা সাধারণ মানুষকে দেওয়া শুরুর মুখে এই ঘোষণা করলেন সে দেশের উপ-প্রধানমন্ত্রী তাতিয়ানা গোলিকোভা।

যদিও তার আগেই রাশিয়ার স্বাস্থ্য আধিকারিকরা জানিয়ে দিয়েছিলেন যে একবার টিকাকরণ হলে ওই পুরুষ বা মহিলা সেদিন থেকে পরবর্তী ২ মাস মদ্যপান করতে পারবেননা। তাহলে সব জলে যাবে।

রাশিয়ার মত দেশে সাধারণ মানুষের অনেকেই মদ্যপান করে থাকেন। নিয়মিত মদ্যপান করে থাকেন। এমন এক ঘোষণায় অনেকেই এখন ভাবতে শুরু করেছেন আদৌ তিনি করোনা প্রতিষেধক টিকা নেবেন কিনা।

বিশেষজ্ঞরা অবশ্য বারবার জানাচ্ছেন, করোনা প্রতিষেধক টিকা নিতে গেলে মানুষের স্বার্থেই মদ্যপানে না করা হচ্ছে। তাঁদের ভালর কথা ভেবেই এতে না করা হচ্ছে।

মদ্যপানে না করা হচ্ছে যাতে করোনা প্রতিষেধক টিকা প্রদানের পর করোনা প্রতিরোধী শক্তি শরীরে ঠিকভাবে তৈরি হতে পারে ও তা তার প্রয়োজনীয় সময় পায় তার কার্যকারিতা দেখানোর।

রাশিয়ার এই বার্তার পর ভারতের বিশিষ্ট চিকিৎসক জ্যোতি মুত্তা বোঝানোর চেষ্টা করেছেন কেন মদ্যপান থেকে বিরত থাকতে বলা হচ্ছে। তিনি জানিয়েছেন, এটা রাশিয়া বলছে তার কারণ তারা চাইছে টিকা দেওয়ার পর শরীরে যেন অত্যন্ত শক্তিশালী রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা গড়ে ওঠে।

সেইসঙ্গে চিকিৎসক মুত্তা এও জানান, স্পুটনিক ভি টিকা গোটা বিশ্বে ছড়িয়ে দেওয়ার আগে এটাও মূল্যায়ন করে দেখা দরকার যে অ্যালকোহলের সঙ্গে এই টিকার মিথস্ক্রিয়ার পর পরিস্থিতি ঠিক কী দাঁড়াচ্ছে। — সংবাদ সংস্থার সাহায্য নিয়ে লেখা

Show More

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *