World

পাওয়া গেল অন্য এক প্রাচীন সভ্যতার শহর, কীভাবে সম্ভব সেটাই প্রশ্ন

দেশ একটা আর সেখানে একটা আস্ত শহর অন্য সভ্যতার কথা বলছে। এমন নিদর্শন বিরল। তবে তেমনই এক শহর এবার পাওয়া গেল।

বালি আর মাটির তলায় যে কত কিছুই লুকিয়ে রয়েছে তা কারও জানা নেই। বালি বা মাটি খুঁড়ে এখনও নিত্যনতুন নিদর্শনের হদিশ পাচ্ছেন প্রত্নতাত্ত্বিকরা। আর সেসব আবিষ্কার নতুন করে লিখতে বাধ্য করছে ইতিহাস।

চেনা ইতিহাসের পাতা যাচ্ছে মুছে। সেখানে লেখা হচ্ছে নতুন খোঁজ। দেশজুড়ে নিরন্তর খননকার্যও হয়ে চলেছে। এবার একদল গবেষক খনন চালিয়ে একটি আস্ত শহরের খোঁজ পেলেন। যা তাঁদেরও হতবাক করে দিয়েছে।

প্রত্নতাত্ত্বিক গবেষকরা জানাচ্ছেন, মিশরে নীলনদের ধারে একটি প্রাচীন শহর লাক্সার। সেই শহরের কাছেই একটি আস্ত শহরের খোঁজ মিলেছে। যে শহরটি তৈরি হয়েছে রোমান স্থাপত্যের হাত ধরে।

গোটা শহরটাই রোমান শহর বলে মনে হবে। এখানে প্রচুর রোমান যুগের ব্রোঞ্জ ও তামার মুদ্রাও পাওয়া গিয়েছে। পাওয়া গিয়েছে অনেক পাত্র।

এইসব নিদর্শন দেখে রোমানদের কথাই মনে পড়ে। এটাই সবচেয়ে অবাক করা যে মিশরে কীভাবে আস্ত একটা রোমান শহর এসে হাজির হল?

গবেষকেরা জানাচ্ছেন ২ বা ৩ দশকে এখানে এই রোমান শহরটি ছিল। সেখানে মানুষের বসবাস ছিল। যা সত্যিই অনেক গবেষককে অবাক করছে।

পুরো শহরটা রোমান যুগের বড় শহরের মত করে তৈরি। সেখানে বহু মানুষের বসবাসও ছিল। যা দেখার পর মিশরের ইতিহাসে নতুন এক অধ্যায় যুক্ত হতে পারে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞেরা।

Show More

News Desk

নীলকণ্ঠে যে খবর প্রতিদিন পরিবেশন করা হচ্ছে তা একটি সম্মিলিত কর্মযজ্ঞ। পাঠক পাঠিকার কাছে সঠিক ও তথ্যপূর্ণ খবর পৌঁছে দেওয়ার দায়বদ্ধতা থেকে নীলকণ্ঠের একাধিক বিভাগ প্রতিনিয়ত কাজ করে চলেছে। সাংবাদিকরা খবর সংগ্রহ করছেন। সেই খবর নিউজ ডেস্কে কর্মরতরা ভাষা দিয়ে সাজিয়ে দিচ্ছেন। খবরটিকে সুপাঠ্য করে তুলছেন তাঁরা। রাস্তায় ঘুরে স্পট থেকে ছবি তুলে আনছেন চিত্রগ্রাহকরা। সেই ছবি প্রাসঙ্গিক খবরের সঙ্গে ব্যবহার হচ্ছে। যা নিখুঁতভাবে পরিবেশিত হচ্ছে ফোটো এডিটিং বিভাগে কর্মরত ফোটো এডিটরদের পরিশ্রমের মধ্যে দিয়ে। নীলকণ্ঠ.in-এর খবর, আর্টিকেল ও ছবি সংস্থার প্রধান সম্পাদক কামাখ্যাপ্রসাদ লাহার দ্বারা নিখুঁত ভাবে যাচাই করবার পরই প্রকাশিত হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *