Entertainment

প্রয়াত কিংবদন্তি অভিনেতা দিলীপ কুমার, একটি যুগের অবসান

অবশেষে মৃত্যুর সঙ্গে লড়াইটা হেরে গেলেন কিংবদন্তি অভিনেতা দিলীপ কুমার। মৃত্যুকালে বয়স হয়েছিল ৯৮ বছর। তাঁর পরিবারের তরফে তাঁর মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করা হয়েছে।

এরমধ্যে অগুন্তি বার হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন তিনি। আবার কঠিন পরিস্থিতির বিরুদ্ধে লড়াই করে হাসি মুখে বাড়িও ফিরেছিলেন।

গত কয়েক বছরে বারবার তিনি ফুসফুসের সংক্রমণের কারণে হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন। কিন্তু মৃত্যুর কাছে হার মানেননি ভারতীয় সিনেমার এই কিংবদন্তি অভিনেতা।

যিনি নিজেই একটা অধ্যায় গড়েছিলেন সিনেমা জগতে। অবশেষে বুধবার সকাল সাড়ে ৭টায় মুম্বইয়ের হিন্দুজা হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন দিলীপ কুমার।

গত বুধবার দিলীপ কুমারের প্রবল শ্বাসকষ্ট শুরু হয়। কদিন আগেই শ্বাসকষ্ট নিয়ে ভর্তি হয়েছিলেন হাসপাতালে। তারপর সুস্থ হয়ে বাড়িও ফেরেন। ফের বুধবার তাঁকে দ্রুত হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

হিন্দুজা হাসপাতালেই ভর্তি করা হয় দিলীপ কুমারকে। প্রবল শ্বাসকষ্টের সঙ্গে লড়াই চলছিল তাঁর। গত কয়েকদিনে চিকিৎসকেরাও তাঁকে সুস্থ করে তোলার যাবতীয় লড়াই চালিয়েছেন। কিন্তু সব লড়াই শেষ হল বুধবার সকালে। শেষ হল ভারতীয় সিনেমার একটা যুগের।

দিলীপ কুমারের অফিসিয়াল ট্যুইটার হ্যান্ডলে তাঁর মৃত্যুর কথা নিশ্চিত করেন তাঁর পারিবারিক বন্ধু ফয়জল ফারুকি।

প্রসঙ্গত ২ দিন আগেই দিলীপ কুমারের স্ত্রী সায়রা বানু সোশ্যাল মিডিয়ায় জানান ঈশ্বরকে ধন্যবাদ। দিলীপসাব আস্তে আস্তে সুস্থ হয়ে উঠছেন। তাঁর শারীরিক অবস্থায় উন্নতি হয়েছে। দিলীপ কুমারকে দ্রুত হাসপাতালে থেকে ছেড়ে দেওয়া হবে বলেও জানান সায়রা বানু।

দিলীপ কুমারের আসল নাম ইউসুফ খান। তাঁর অভিনীত অগুন্তি সিনেমা ভারতীয় সিনেমায় মাইলস্টোন হয়ে থেকে যাবে। তাঁর অভিনীত মধুমতী, নয়া দৌড়, মুঘল-এ-আজম, দেবদাস, রাম অর শ্যাম, গঙ্গা যমুনা, সাগিনা মাহাতো এবং এমন একের পর এক সিনেমায় দিলীপ কুমার তাঁর অভিনয় প্রতিভা ও মৌলিক অভিনয় ধারার ছাপ রেখেছিলেন। — সংবাদ সংস্থার সাহায্য নিয়ে লেখা

Show More

News Desk

নীলকণ্ঠে যে খবর প্রতিদিন পরিবেশন করা হচ্ছে তা একটি সম্মিলিত কর্মযজ্ঞ। পাঠক পাঠিকার কাছে সঠিক ও তথ্যপূর্ণ খবর পৌঁছে দেওয়ার দায়বদ্ধতা থেকে নীলকণ্ঠের একাধিক বিভাগ প্রতিনিয়ত কাজ করে চলেছে। সাংবাদিকরা খবর সংগ্রহ করছেন। সেই খবর নিউজ ডেস্কে কর্মরতরা ভাষা দিয়ে সাজিয়ে দিচ্ছেন। খবরটিকে সুপাঠ্য করে তুলছেন তাঁরা। রাস্তায় ঘুরে স্পট থেকে ছবি তুলে আনছেন চিত্রগ্রাহকরা। সেই ছবি প্রাসঙ্গিক খবরের সঙ্গে ব্যবহার হচ্ছে। যা নিখুঁতভাবে পরিবেশিত হচ্ছে ফোটো এডিটিং বিভাগে কর্মরত ফোটো এডিটরদের পরিশ্রমের মধ্যে দিয়ে। নীলকণ্ঠ.in-এর খবর, আর্টিকেল ও ছবি সংস্থার প্রধান সম্পাদক কামাখ্যাপ্রসাদ লাহার দ্বারা নিখুঁত ভাবে যাচাই করবার পরই প্রকাশিত হয়।
Back to top button