World

মাঝে সমুদ্র, তবু এ দেশ থেকে ও দেশ হেঁটেই যাতায়াত করা যায়

মাঝে সমুদ্র। আর সমুদ্রের জলের ওপর দিয়ে হেঁটে তো যাতায়াত করা যায়না। কিন্তু এই ২ দেশের মানুষ হেঁটেই এ দেশ থেকে ও দেশ পৌঁছে যেতে পারেন।

মাঝে সমুদ্রের জল তার অতল গভীরতা নিয়ে শুয়ে আছে। ২ ধারে ২ দেশ। তাদের আলাদা করেছে বেরিং প্রণালী। প্রণালী সমুদ্রেরই অংশ। যা ২টি প্রান্তের স্থলভাগকে অল্প দূরত্বে আলাদা করে।

সেই বেরিং প্রণালীর একদিকে রাশিয়া এবং অন্যদিকে আলাস্কা। ডাইমিডি দ্বীপ এই ২ দেশের মধ্যে দূরত্বকে সবচেয়ে কম করেছে। যেখানে ২ দেশের স্থলভাগের ২ বিন্দুর দূরত্ব দাঁড়ায় ৩.৮ কিলোমিটার। হেঁটে খুব বেশি কিছু নয়।

সমুদ্রের ওপর দিয়ে হলেও তা ছোট জাহাজ বা স্টিমারে পৌঁছনো অসম্ভব কিছুই নয়। কিন্তু জলের ওপর দিয়ে হেঁটে যেতে বললে সেটা কি সম্ভব? সকলেই মেনে নেবেন সম্ভব নয়।

কিন্তু রাশিয়া ও আলাস্কার মানুষ হেঁটেই এপার ওপার করতে পারেন। পৃথিবীতে একাধিক প্রণালী রয়েছে যা এভাবে ২টি দেশকে আলাদা করেছে। কিন্তু সেখানে হেঁটে যাতায়াত সম্ভব নয়।


রাশিয়া ও আলাস্কার মানুষ হেঁটেই যাতায়াত করতে পারেন কারণ বছরের একটা সময় এই বেরিং প্রণালীর এই অংশটি বরফে ঢেকে যায়। প্রবল ঠান্ডায় পুরু বরফের চাদরে ঢাকা বেরিং প্রাণীর ওপর দিয়ে তখন দিব্যি হেঁটে চলে বেড়াতে পারেন মানুষজন।

Bering Strait
বিমান থেকে বেরিং প্রণালী, ছবি – সৌজন্যে – উইকিমিডিয়া কমনস

যতদিন এই প্রণালী বরফের চাদরে ঢাকা থাকে ততদিন রাশিয়া ও আলাস্কার মধ্যে হেঁটে যাতায়াত অসম্ভব কিছু নয়। বরফের চাদর এতটাই পুরু হয় যে মানুষ হাঁটা চলা করলেও তা গলে যাওয়া বা ভেঙে যাওয়া সম্ভব নয়। ফলে জীবনের ঝুঁকিও থাকেনা।

Show Full Article

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button