Wednesday , July 24 2019
Time

স্ত্রীর আচরণে হাসলেন মনীষী, দিলেন জীবনে প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পথ

সহিষ্ণুতা এমনই একটা গুণ যা প্রলোভন বিপর্যয় বাধাবিপত্তি অধ্যবসায়ের সঙ্গে সহ্য করতে শেখায়। সহিষ্ণুতায় ব্যক্তির মঙ্গল হয়। দার্শনিক রুশো বলেছেন, ‘ধৈর্য তিক্ত হলেও তার ফল মিষ্ট।’

গ্রিক দার্শনিক সক্রেটিস ছিলেন অত্যন্ত শান্ত ও সহিষ্ণু ব্যক্তি। কিন্তু তাঁর বড় দুর্ভাগ্য হল, তাঁর স্ত্রী ছিলেন অত্যন্ত অমার্জিত ও উগ্র প্রকৃতির। একদিন সক্রেটিস কোনও শিক্ষণীয় বিষয় নিয়ে শিষ্যদের সঙ্গে আলোচনা করছিলেন ঘরের বাইরে। এমন সময় শান্তিপ্পে উপরের মাথা বার করে কটূক্তি করতে লাগলেন স্বামীকে।

সক্রেটিস এতটুকুও উত্তেজিত হলেন না স্ত্রীর রূঢ় ও কটুবাক্যে। তিনি আলোচনায় ব্যস্ত রইলেন শিষ্যদের সঙ্গে। এবার স্ত্রী একনাগাড়ে অনেকক্ষণ চিৎকার করার পর আত্মসংবরণ করতে পারলেন না। জলভর্তি একটা কলস ছুঁড়ে মারলেন স্বামীর দিকে।

সক্রেটিসের সর্বাঙ্গ ভিজে গেলেও তাঁর ধৈর্যচ্যুতি ঘটল না, তিনি হাসতে হাসতে শিষ্যদের বললেন, আমার জানা উচিত ছিল যে, বজ্রপাতের পর বৃষ্টি হবেই।

সহিষ্ণুতা অর্জন সম্পর্কে রুডিয়ার্ড কিপলিং বলেছেন, বিরক্ত না হয়ে ধৈর্য ধরো, কেউ তোমার বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ করলে তার প্রতি তুমি অনুরূপ ব্যবহার করবে না। ঘৃণার প্রতিদানে ঘৃণা করবে না। তোমার সৌজন্যবোধ ও জ্ঞান নিয়ে গর্ব করবে না। শত্রু তোমার ভালো কথার বিপরীত অর্থ ও নিন্দা করলেও তুমি তার প্রতিশোধ নেবে না। কোনও কাজে ক্ষতিগ্রস্ত হলে, সে কাজ নতুন করে শুরু করবে বিরক্ত না হয়ে। মানুষকে ভালোবেসে তাদের কাছ থেকে প্রতিদান আশা না করলে, পৃথিবীতে তোমার প্রভাব প্রতিষ্ঠিত হবে ও সর্বোপরি তুমি হবে প্রকৃত মানুষ।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *