World

১২ ঘণ্টা পর জঙ্গিমুক্ত ঢাকার রেস্তোরাঁ

প্রায় ১২ ঘণ্টার রুদ্ধশ্বাস উদ্বেগের সমাপ্তি। অবশেষে জঙ্গিমুক্ত হল ঢাকার গুলশন এলাকার অভিজাত স্প্যানিশ রেস্তোরাঁ হোলি আর্টিজান বেকারি। বাংলাদেশ সেনার হস্তক্ষেপে শনিবার সকালে জঙ্গিদের পর্যুদুস্ত করা সম্ভব হয়। রেস্তোরাঁর মধ্যে পণবন্দি ১৩ জনকে উদ্ধার করেছে সেনা। যারমধ্যে ৩ জন বিদেশি। সেনার সঙ্গে গুলির লড়াইয়ে ৬ জঙ্গি প্রাণ হারিয়েছে। ১ জনকে জীবিত অবস্থায় পাকড়াও করা সম্ভব হয়েছে। কিন্তু বাংলাদেশ সেনার অনুমান এখনও নিখোঁজ ২-৩ জন জঙ্গি। তাদের খোঁজে তন্নতন্ন করে তল্লাশি চলছে। রেস্তোরাঁর মধ্যে থেকে ৩টি বোমা উদ্ধার করেছে সেনা। গুলির লড়াইয়ে দুই ইতালীয় নাগরিক সহ ২০ জন মানুষ প্রাণ হারিয়েছেন। শুক্রবার রাতে এই রেস্তোরাঁর মধ্যে আচমকাই ঢুকে পড়ে ৮-১০ জন সশস্ত্র জঙ্গি। ঢুকেই তারা রেস্তোরাঁর মধ্যে থাকা লোকজনকে পণবন্দি করে ফেলে। বাংলাদেশ পুলিশ রেস্তোরাঁটি ঘিরে ফেললে জঙ্গিদের সঙ্গে তাদের গুলি বিনিময় শুরু হয়। গুলিতে ঢাকার একটি থানার ওসি সহ ২ পুলিশ আধিকারিকের মৃত্যু হয়। ২০ জন পুলিশকর্মী গুরুতর জখম হন। রাতভর রেস্তোরাঁ ঘিরে রাখে পুলিশ। সকালের আলো ফুটলে রেস্তোরাঁটিকে জঙ্গিমুক্ত করতে যোগ দেয় বাংলাদেশ সেনা। ১০০ সদস্যের একটি কমান্ডো বাহিনী অপারেশন শুরু করে। জঙ্গিদের অন্ধকারে রাখতে টিভিতে অপারেশনের সম্প্রচার বন্ধ রাখা হয়। এরপর জঙ্গিদের যাবতীয় দাবি মেনে শুরু হয় তাদের ওপর চাপ তৈরি কৌশল। জঙ্গিরা যখন বিশ্বাস করতে শুরু করেছে যে তাদের যাবতীয় শর্ত বাংলাদেশ সরকার মেনে নিচ্ছে তখনই তাদের ওপর আক্রমণ হানে সেনা। কোণঠাসা করে ফেলে তাদের। শুরু হয় জঙ্গি-সেনা গুলির লড়াই। দীর্ঘ গুলি যুদ্ধের পর অবশেষে ৬ জঙ্গিকে মেরে রেস্তোরাঁয় ঢুকে পড়ে সেনা। দ্রুত পণবন্দিদের বার করে আনা হয় সেখান থেকে। রেস্তোরাঁয় তল্লাশি চালিয়ে ৩টি বোমা নিষ্ক্রিয় করে সেনা। সন্ত্রাসবাদী সংগঠন আইএস এই হামলার দায় স্বীকার করেছে। এদিকে গুলশন এলাকাকে ঢাকার দূতাবাস পাড়া বলাই যায়। এখানেই পরপর রয়েছে বিভিন্ন দেশের দূতাবাস। ৩৫টি দূতাবাসের এই এলাকায় ভারতীয় দূতাবাসও রয়েছে। যেখানে ঘটনা ঘটেছে সেখান থেকে মাত্র ২ কিলোমিটার দূরেই ভারতীয় দূতাবাস। তবে দূতাবাসের তরফে জানান হয়েছে সেখানে সকলে ভালই আছেন। গোটা পরিস্থিতির ওপর নজর রাখছেন তাঁরা। এদিকে বাংলাদেশে এ ধরণের জঙ্গিহানার ঘটনা ঘটে না। রমজান মাস চলাকালীন এমন হানায় বাংলাদেশ জুড়ে আতঙ্ক ছড়িয়েছে। গোটা পরিস্থিতির ওপর নজর রাখছে ভারতের বিদেশ মন্ত্রকও। তুরস্কের আতাতুর্ক বিমানবন্দরে জঙ্গি হানার পরদিন ভারত জুড়ে বড়সড় জঙ্গি হামলার ছক বানচাল করে এনআইএ। সেই ঘটনার কথা মাথায় রেখে প্রতিবেশি দেশ হিসাবে সতর্ক ভারত। এদিকে ঢাকা জুড়ে শনিবার লাল সতর্কতা জারি করা হয়েছে। শহর জুড়ে চলছে খানাতল্লাশি। দেশের বিভিন্ন প্রান্তেও তল্লাশি চলছে। বাংলাদেশে ব্লগার খুনের ঘটনা শুরুর পর এখন শুরু হয়েছে হিন্দু মন্দিরের সেবায়েত খুন। শুরু হয়েছে মুক্তমনা মানুষ হত্যাও।যার অধিকাংশের পিছনেই আইএসের হাত রয়েছে বলে মনে করছে বাংলাদেশ প্রশাসন। এমন ঘটনা রুখতে কড়া পদক্ষেপও করেছে তারা। তারমধ্যেই এভাবে রেস্তোরাঁয় জঙ্গি হানা হাসিনা সরকারের চিন্তা অনেকটাই বাড়াল।


Show Full Article

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button