Entertainment

খাওয়া নিয়ে কারও উপদেশ শুনতে নারাজ আদনান

খাবার খেয়ে খেয়েই তিনি স্থূলকায় হয়েছিলেন। তাই খাবার নিয়ে কারও কাছে কোনও উপদেশ তিনি শুনতে রাজি নন। সোশ্যাল সাইটে সাফ জানালেন গায়ক আদনান সামি।

মুম্বই : কোনও অসুখ নয়। নিছক খেয়ে খেয়ে ওজন ২৩০ কেজিতে পৌঁছে গিয়েছিল তাঁর। আবার তিনিই সেই ওজনকে কঠোর খাদ্যতালিকা এবং ব্যায়ামের মধ্যে দিয়ে ৭৫ কেজিতে নামিয়ে এনেছেন। তাই খাবার নিয়ে কারও কোনও কটাক্ষ তিনি মেনে নিতে রাজি নন। এটা অন্তত সোশ্যাল সাইটে পরিস্কার করে দিলেন বিখ্যাত গায়ক আদনান সামি।

আদনানের পোস্ট করা একটি খাবারের ছবি নিয়ে এক নেটিজেনের কটাক্ষের জেরেই আদনান মুখ খোলেন তাঁর বিশাল চেহারা নিয়ে। আদনান সামির গানের গলা নিয়ে চর্চার সঙ্গে সঙ্গে এক সময় তাঁর শরীর নিয়েও চর্চা কম হয়নি।

আদনান সেই পুরনো কথাই মনে করিয়ে দিয়েছেন। আর তার সঙ্গে মনে করিয়ে দিয়েছেন কী কঠোর পরিশ্রমের মধ্যে দিয়ে মাত্র ১৬ মাসের মধ্যে নিজের ওজনকে তিনি ২৩০ থেকে ৭৫ কেজিতে নামিয়ে এনেছিলেন।

সম্প্রতি ট্যুইটারে স্ত্রী রোয়া সামি খানের তৈরি করা ‘নিহারি’-র ছবি শেয়ার করেন বিখ্যাত গায়ক। আর তা থেকেই ঘটনার সূত্রপাত।


ছবি দেখে এক নেটিজেন দুম করে মন্তব্য করে বসেন নিহারিতে এত তেল! এটা খাঁটি নিহারি নয়। সাধারণত নিহারি-তে এত তেল ব্যবহার হয়না।

যদিও সেই ব্যক্তি শেষে আপ রুচি খানা-র তত্ত্ব তুলে ধরে বিষয়টিকে স্বাভাবিক করে দেওয়ার চেষ্টা করেন। কিন্তু আদনানের এহেন মন্তব্য ভাল লাগেনি। ফলে আদনান তাঁকে জবাব দিতেও ছাড়েননি।

ট্যুইটারে তিনি নিজের একটি পুরনো ছবি শেয়ার করে লেখেন, ছবিতে যে বিশাল চেহারার মানুষটাকে দেখা যাচ্ছে অবশ্য তিনি আদনানই। আর ওই চেহারাটা নিশ্চয়ই ‘সেলেরি’ খেয়ে হয়নি।

তাঁর স্থূলকায় হওয়ার কারণ শুধুমাত্র অত্যধিক পরিমাণে খাওয়া! আর বর্তমানে নিজের ওজনের কথা মনে করিয়ে আদনান পরিস্কার করেন, খাবার নিয়ে তিনি কারও জ্ঞান শুনতে নারাজ।

বহুদিন খাবারের বিষয়ে বহু গবেষণা করেছেন। সেই মত খাওয়া দাওয়া করেছেন তিনি। আদনান আরও মনে করিয়ে দেন যে নিহারি-তে ঘিটা একটু বেশিই পড়ে।

১৬ মাসের মধ্যে ২৩০ কিলোগ্রাম থেকে ৭৫ কিলোগ্রামে নেমে আসে আদনান সামির ওজন। শুধুমাত্র কঠোর ডায়েট আর শরীরচর্চার মধ্যে দিয়ে এই অবস্থায় এসে পৌঁছেছেন।‌

আদনান ট্যুইটারে আরও একজন নেটিজেনের মন্তব্যে জানান কার্বোহাইড্রেট জাতীয় খাবার মানে রুটি, ভাত, আলু, চিনির মত খাবার তাঁর ওজন বৃদ্ধির অন্যতম কারণ ছিল। অন্য আর কোনও কারণে তাঁর ওজন বৃদ্ধি হয়নি বলেই মনে করেন আদনান।

নিহারির তেল নিয়ে বিতর্ক থাকলেও এত কম সময়ের মধ্যে যে পরিমাণ ওজন কমিয়েছিলেন আদনান সেটা সত্যি প্রশংসার দাবি রাখে, সেটা নিয়ে কোনও বিতর্ক হতেই পারে না। — সংবাদ সংস্থার সাহায্য নিয়ে লেখা

Show Full Article
Back to top button