Friday , November 22 2019
Bengali Horoscope Pisces

মীন রাশির ২০১৯ বছরটা কেমন যাবে ও কি করলে ভালো থাকবেন – শিবশংকর ভারতী

পাঠক-পাঠিকাদের অবগতির জন্য বলি, এখানে যে প্রতিকার দেওয়া হল তা সারা জীবনের জন্য নয়। সাময়িক অস্বস্তিকর সময়ের হাত থেকে খানিকটা স্বস্তি পেতে। যখন সময়টা ধীরে ধীরে শুভ হয়ে উঠবে, তখন প্রতিকার না করলেও চলবে। করলে কল্যাণ কিছু হবে, না করলে ক্ষতি কিছু হবে না। প্রতিকারটা জানুয়ারি থেকে ডিসেম্বর – এক বছরের জন্য করতে পারেন।

প্রতিকারগুলো নিষ্ঠার সঙ্গে করলে ফল অবধারিত। অশ্রদ্ধা, অবিশ্বাস ও অভক্তিতে করলেও ফলের মার নেই। তবে ফল তাড়াতাড়ি না দেরিতে, তা নির্ভর করে ব্যক্তিগত জন্মকালীন সার্বিক গ্রহাবস্থানের উপর, যা বিশদ আলোচনা সাপেক্ষ।

দেবগণের ঋষি অঙ্গিরার পুত্র দেবগুরু বৃহস্পতি। জ্ঞানযোগী বৃহস্পতির আপন ক্ষেত্র এবং কর্মযোগী ভোগবাদী দৈত্যগুরু শুক্রাচার্যের তুঙ্গক্ষেত্র মীন রাশি। তাই এই রাশির জাতক জাতিকাদের মধ্যে রয়েছে সত্যের পরিচয়, কর্তব্যনিষ্ঠা ও আদর্শবাদের বলিষ্ঠ প্রকাশ। আধ্যাত্মিক অনুভূতিকে এরা চিরন্তন করে রাখতে চায় মনের প্রতিটা স্তরে।

দৈত্যগুরু অন্যদিকে শিক্ষা দিয়েছেন কর্মের মধ্যে দিয়ে লাভ করতে হবে ত্যাগকে। তবে ভোগবাদকে অস্বীকার করে কিছুতেই লাভ করা যায় না ত্যাগবাদকে। চাই ভোগ, সৃষ্টি, আনন্দ, দৈহিক পরিতৃপ্তির জন্য ইন্দ্রিয়সুখ। সত্ত্ব ও রজোগুণের এই বিকাশই প্রস্ফুটিত হয়েছে মীন রাশির জাতক জাতিকার মধ্যে। ধর্ম শুধুমাত্র ত্যাগের নয়, ভোগেরও অধিকার রয়েছে পূর্ণমাত্রায়। এই রাশি জন্মকুণ্ডলীতে পাপগ্রহ দ্বারা পীড়িত হলে সমস্ত সত্ত্বগুণ নষ্ট হয়ে যায়। তখন ভোগের জন্য ব্যাকুল মন খুঁজে পায় না তার প্রকৃত চরিত্রকে। রাশির উপরে শুভগ্রহের প্রভাব থাকলে জাতক জাতিকাদের মন চরিত্র সংসারজীবন ও অন্যান্য বিষয় সার্থক সুন্দর হয়ে ওঠে সবদিক থেকে।

সারাবছর ব্যবসায়ীদের কর্মক্ষেত্র চলবে একটা না একটা অস্বস্তির মধ্যে দিয়ে। একাধিকবার কোনও ভালো সুযোগ হাতছাড়া হওয়ার সম্ভাবনা। কর্মক্ষেত্রে কোনও অশান্তি মনকে অস্থির করে তুলতে পারে। মোটের উপর কর্মক্ষেত্রের সমস্ত ব্যাপারটা চলবে গুঁতিয়ে গুঁতিয়ে। পেশায় নিযুক্তদের ব্যাপারটা একই রকম। চাকুরিয়াদের কর্মক্ষেত্রে সময়টা জল ছাড়া কই-এর মতো।

বছরটা আয় ব্যয়ের সমতা রক্ষা করেই চলবে। সাধারণ নিয়মেই অর্থাগম হবে। অর্থভাগ্যের লক্ষণীয় পরিবর্তন কিছু হবে না। অর্থাগমের সুযোগ কিছু এসে তা নষ্ট হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা। পারিবারিক নানা কারণে অর্থ ব্যয় বাড়বে তবে আর্থিক ক্ষতির ভয় নেই।

স্বাস্থ্যের পক্ষে সময়টা চলবে সাধারণ নিয়মে। সাধারণ নিয়ম বলতে মাঝে মাঝে বেশ ভালো আবার কখনও বেশ কয়েকদিন দেহের আমেজটা নষ্ট হয়ে থাকবে। তবে স্বাস্থ্য নিয়ে বড় কোনও সমস্যার সময় নয় এখন তবে হবে হার্টের রুগীদের পক্ষে সময়টা উদ্বেগ সূচক।

এবছর সামান্য ছোট্ট কোনও ঘটনা বড় আকার ধারণ করে বাড়ির সকলের শান্তি নষ্টের কারণ হবে। সারা বছর আত্মীয় সমাগমে বিরক্ত হবেন। ব্যয় বাড়বে হু হু করে। অনিচ্ছা সত্ত্বেও দূরপাল্লার কোথাও বেড়াতে যেতে পারে। প্রতিষ্ঠা জীবনে শত্রু দ্বারা ক্ষতির ভয়।

নিজ কিংবা খুব নিকট কোনও আত্মীয়ের গৃহে একাধিকবার শুভ কর্মানুষ্ঠান হবে। সেই অনুষ্ঠানে আপনি নিমন্ত্রিত হবেন। দেবালয় ভ্রমণ হবে। বিদ্যার্থীদের শিক্ষায় অমনোযোগ বাড়বে। অত্যন্ত পরিচিতদের সঙ্গে মতবিরোধজনিত অশান্তিতে মনের স্বস্তি প্রায়ই নষ্ট হবে। ঝামেলার পরিস্থিতিটা সব সময় এড়িয়ে চলুন।

কোনও শুভ কর্মানুষ্ঠানের যোগাযোগ শেষ বেলায় ভেস্তে যাওয়ার সম্ভাবনা। পাওনা টাকা আটকে যাওয়া কিংবা দেরিতে পাওয়ার যোগ। সারা বছর শত্রুতা করে কেউ ক্ষতিসাধনে সমর্থ হবে না।

কি করলে একটু ভালো থাকবেন :

গণেশের বাম হাতে দড়ির ফাঁস, পদ্ম, আর এক হাতে লাড্ডু আছে, এমন গণেশের ছবি সংগ্রহ করুন। প্রতিদিন স্নানের পর যে কোনও হলুদ রঙের ফুল চরণে দিয়ে তিনবার স্পর্শ প্রণাম করলেই হবে। জল মিষ্টি দিতে পারলে ভালো, না দিলে ক্ষতি নেই। কোনও নিয়ম নেই।

কি রঙের পোশাক পরবেন :

সারাটা বছর সার্বিকভাবে নিজেকে সুন্দর ও আনন্দময় রাখতে সাদা আর হলুদের উপর পোশাক বেশি ব্যবহার করতে চেষ্টা করুন। এই রং দুটো অর্থ ও সম্মান বৃদ্ধি করবে। ওই দুটো রঙের যে কোনওটাই বাড়ি ঘরে ব্যবহার করতে পারেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *