Wednesday , November 14 2018
Bengali Horoscope

জন্মের মাস অনুযায়ী ১৪২৫ বছরটা কেমন যাবে – শিবশংকর ভারতী

অনেকের জন্ম মাস জানা আছে কিন্তু জানা নেই জন্ম রাশি। যাদের জন্ম মাস জানা আছে তারা মাস ফলের মাধ্যমে জানতে পারবেন বাংলা সন ১৪২৫টা (১৫ এপ্রিল ২০১৮ থেকে ১৪ এপ্রিল ২০১৯ পর্যন্ত) কেমন যাবে। সব কথা মিলবে, এমনটা ভাববার কোনও কারণ নেই। এটা সম্পূর্ণ অনুমানভিত্তিক একটা হালকা আভাসমাত্র।


যাদের বৈশাখে জন্ম তাদের বছরটা কেমন যাবে :

কর্ম জীবনের উন্নতি ও শুভ কাজে বাধা থাকবে তবে তা সত্ত্বেও কমবেশি কিছু উন্নতি মূলক পরিবর্তন হবে বিশেষ করে পেশা বা ব্যবসায় যারা আছেন। খুব নয় তবে সামান্য ঝুঁকি নিয়ে কিছু অর্থ বিনিয়োগ করতে পারেন। চাকরিজীবীদের সময়টা কর্মক্ষেত্রের পক্ষে সুন্দর ও সুখকর নয়।

আর্থিক বিষয়ে চাপ একটা থাকবে তা সত্ত্বেও কমবেশি অর্থাগম হবে। এটা ব্যবসায়ীদের ক্ষেত্রে। পেশায় যারা আছেন তাদের অর্থাগম হবে সাধারণ নিয়মে। তবে এ বছরে নতুন যোগাযোগের অতিরিক্ত কিছু অর্থাগম হবে।

সাধারণ স্বাস্থ্য সারা বছর মাঝে মধ্যে বিব্রত করবে তবে বড় উদ্বেগসূচক কোনও রোগ ভোগের তেমন যোগ দেখা যায় না। মোটের উপর স্বাস্থ্য সচল থাকবে।

এ বছর সার্বিক চাপ বাধা আর অস্থিরতা প্রায়ই বড্ড বিব্রত করবে তবে এ সত্ত্বেও কোনও শুভ যোগাযোগে উৎসাহিত হবেন। পারিবারিক জীবনে হঠাৎ কোনও বড় সমস্যায় বেশ বিচলিত হতে পারেন এবং যথেষ্ট অর্থ নষ্ট বা ব্যয়ের সম্ভাবনা প্রবল। গৃহাদি নির্মাণে ক্রয় বিক্রয় কিংবা গৃহাদির সংক্রান্ত বিষয়ে কোনও সমস্যা বা ঝামেলায় বেশ বিব্রত হওয়ার যোগ।

বিবাহিত জীবনে মন ও মতের মিল তো এমনিতেই কম। এখন এই সমস্যা আরও খানিকটা বাড়বে। সম্ভাব্য ক্ষেত্রে তৃতীয় পুরুষ বা মহিলার আগমন সম্ভাবনা প্রবল। মোটের উপর বিবাহিতদের এ বছরটা সংসার জীবন কাটবে একটা না একটা নতুন তৈরি করা অশান্তির মধ্যে দিয়ে।

প্রেমপ্রীতির ক্ষেত্রে বেশিরভাগ ক্ষেত্রে পুরুষদের ক্ষেত্রে বিবাহিতা কিংবা বয়স্কা মহিলা, মহিলাদের ক্ষেত্রে বয়স্ক কিংবা বিবাহিত পুরুষের আগমন সম্ভাবনা প্রবল।

ধর্মভাব শুভ। হঠাৎ হঠাৎ ভ্রমণ হবে। অধিকাংশ ক্ষেত্রে দেবালয় ভ্রমণ। অদীক্ষিতদের অনেকের দীক্ষালাভের যোগ আসবে এবং অনেকের হবে।

প্রতিষ্ঠা জীবনে শত্রু বাড়বে তবে ক্ষতির ভয় নেই। এ বছর আত্মীয়রা তেমন উপকারে আসবে না। অনাত্মীয়দের সহায়তা লাভ হবে বহুবার, বিশেষ করে বয়স্কদের।

যাদের জ্যৈষ্ঠে জন্ম তাদের বছরটা কেমন যাবে :

কর্মজীবনে মনের স্বস্তির অভাব থাকবে। সারা বছর কমবেশি একটা বাধা অস্থিরতা প্রায়ই বড্ড বিব্রত করে রাখবে। বিশ্বাস করে ব্যবসায় অর্থ বিনিয়োগ করলে ক্ষতির ভয়টা থাকবে বেশি। পেশা বা চাকরিতে যারা আছেন তাদের সময়টা একেবারেই গতানুগতিক ধারায় চলবে।

ব্যবসায়ীদের অর্থাগমটা সুন্দরভাবে হবে না। মাঝে মাঝে বেশ ভালো আবার কখনও চলবে বেশ চাপের মধ্যে দিয়ে। মোটের উপর আর্থিক চাপ একটা থাকবে তবে কোনও ভাবে কোনও কাজটা আটকাবে না অর্থের জন্য।

স্বাস্থ্যের কারণে বেশ কিছু অর্থ ব্যয় হবে। মাঝে মধ্যেই স্বাস্থ্য বিব্রত করবে। হার্টের রুগীদের পক্ষে সময় কিন্তু উদ্বেগসূচক।

অপ্রত্যাশিতভাবে যথেষ্ট অর্থব্যয় বা নষ্ট হবে। এমন কোনও সংবাদ বা যোগাযোগ আসবে না যাতে আপনার আনন্দ বাড়ে। সংসার জীবন এ বছরটা কাটবে শান্তি ও অশান্তির মধ্যে দিয়ে। আত্মীয় ও বন্ধুরা তেমন উপকারে আসবে না। কোথাও বেড়াতে যাওয়ার পরিকল্পনা করেও পরে তা বাতিল হওয়ার সম্ভাবনা। পুরনো কোনও আত্মীয় কিংবা বন্ধুর সঙ্গে সম্পর্ক নষ্ট হতে পারে। উটকো ঝামেলায় অর্থ ও মনের শান্তি নষ্ট হবে। শত্রু দ্বারা ক্ষতির ভয় নেই।

দীক্ষিতদের সাধন ভজনে মন বসবে না। ব্যাপারটা ঘটবে একেবারে দায়সারা গোছের। অদীক্ষিতদের দীক্ষার তোড়জোড় করে শেষ মেষ না হওয়ার সম্ভাবনা। এ বছর বার কয়েক নিকট ভ্রমণ ও দেবালয় গমনের যোগ।

কোন ঝুঁকিপূর্ণ কাজ ও কাউকে আর্থিক সাহায্য দিয়ে উপকার করলে সে অর্থ ফেরত পাওয়া নিয়ে দুর্ভোগ হবে। সুতরাং না দেওয়াই ভালো।

বিদ্যার্থীদের পক্ষে সময়টা শুভ নয়। মন সংযোগের বড্ড অভাব হবে। যত্নের সঙ্গে শিক্ষা চালানো কর্তব্য। এ বছর আত্মীয় ও বন্ধুরা তেমন কাজে আসবে না। মাঝে মাঝে কাছাকাছি কোথাও না কোথাও বেড়াতে যাবেন। দূরপাল্লায় ভ্রমণে বাধা জন্মাবে। শত্রু দ্বারা ক্ষতির ভয় নেই।


যাদের আষাঢ়ে জন্ম তাদের বছরটা কেমন যাবে :

কর্ম ও অর্থভাগ্যে কমবেশি উন্নতি ও যোগাযোগ বাড়বে পেশা বা ব্যবসায় নিযুক্তদের। কর্মক্ষেত্রে কোনও উটকো লোকের অপ্রত্যাশিত সহায়তা লাভ হবে। যারা পেশায় আছেন তাদের কিছু না কিছু নতুন যোগাযোগ উৎসাহিত করবে। চাকরিজীবীদের এ বছর তেমন আশাপ্রদ কোনও যোগাযোগের আশা নেই।

কোনও ব্যক্তির সহায়তায় অর্থাগমে পথ অনেকটাই সুগম হবে। গত বছরের তুলনায় এ বছর কমবেশি আর্থিক উন্নতি হবে। অর্থাগমে কারও অপ্রত্যাশিত কারও সহায়তা লাভ হবে। পেশায় যারা আছেন তাদের আর্থিক যোগাযোগ খানিক বাড়বে।

স্বাস্থ্য সারা বছর মোটামুটি সুস্থ থাকবে তবে যারা দীর্ঘদিন ধরে ভুগছেন তাদের কষ্টের সামান্য উপশম হবে। এছাড়া তেমন বড় কোনও স্বাস্থ্যের গোলযোগের কিছু দেখা যাচ্ছে না।

কোনও উৎসাহিত হওয়ার মতো সারা বছর বেশ কয়েকবার খবর পাবেন। আতিথ্য রক্ষা করতে গিয়ে খরচও বেশ বাড়বে। একাধিকবার কোথাও না কোথাও নিমন্ত্রিত হবেন। দূরপাল্লায় কোথাও ভ্রমণ হবে তবে তার মধ্যে দেবস্থান থাকবে বেশি।

বিদ্যার্থীদের পক্ষে বছরটা আগের তুলনায় অনেকটাই ভালো। কোনও অপ্রত্যাশিত সুযোগ আনন্দ দেবে। কোনও নষ্ট হওয়া সম্পর্ক আবার নতুন রূপ নিতে পারে। শত্রুতা করে কেউ ক্ষতি সাধনে সমর্থ হবে না। সারা বছর বাড়িতে একাধিকবার শুভ কর্মানুষ্ঠান হবে। কোনও বয়স্ক ব্যক্তির সহায়তালাভ হবে। আত্মীয় প্রীতিতে বাধা জন্মাবে।

ধর্মভাব শুভ। ধর্মীয় জীবনে উন্নতি, অদীক্ষিতদের অনেকের দীক্ষালাভ হবে। প্রতিষ্ঠা জীবনে শত্রুতা করে কেউই ক্ষতি সাধনে সমর্থ হবে না। অপ্রত্যাশিত কিছু অর্থ নষ্টের যোগ আছে। তবে অন্য কোনও সূত্রে তা পূরণও হয়ে যাবে।

যাদের শ্রাবণে জন্ম তাদের বছরটা কেমন যাবে :

কর্মক্ষেত্রের উন্নতি ও শুভ যোগাযোগের ক্ষেত্রে সারা বছর বাধা কিছু থাকবে তবে তা সত্ত্বেও কর্মক্ষেত্রের কিছু না কিছু উন্নতি হবে ব্যবসায়ীদের মাঝে মাঝে যোগাযোগ বেশ বাড়বে আবার ভাঁটাও বেশ বিব্রত করবে। তবে গত বছরের তুলনায় এ বছরটা কর্মক্ষেত্রের পক্ষে অনেকটা শুভ হয়ে উঠবে।

আর্থিক যোগাযোগ অনেকটাই বাড়বে গত বছরের তুলনায়। কোনও ব্যক্তির মাধ্যমে অর্থাগমের সুযোগটা আসবে বিশেষ করে ব্যবসায়ী ও পেশায় যুক্তদের একাধিক উপায়ে অর্থাগমের যোগ এবং সেটা অপ্রত্যাশিতভাবে।

স্বাস্থ্যের কারণে মনটা বিব্রত করবে। বছরের অধিকাংশ সময় স্বাস্থ্য ম্যাজম্যাজ করবে। হার্টের রোগীদের পক্ষে সময়টা স্বাস্থ্যের ক্ষেত্রে অশুভসূচক।

একটা অদ্ভুত ধরণের অস্থিরতায় প্রায়ই বড্ড ভুগবেন। পারিবারিক জীবনে প্রায়ই মানসিক ও সাংসারিক অশান্তিতে মন বেশ বিক্ষিপ্ত হয়ে থাকবে। বিদ্যার্থীদের মানসিক অস্থিরতার কারণে শিক্ষায় আশা আশানুরূপ উন্নতি ও সাফল্যে বেশ বাধা জন্মাবে। বিবাহিতদের সারা বছর একটা না একটা লেগে থাকবে।

নিজ কিংবা কোনও নিকট আত্মীয়ের গৃহে এ বছর একাধিকবার মাঙ্গলিক কর্মানুষ্ঠান হবে। অতিথির আগমনে বাড়ি বছরের অধিকাংশ সময় হয়ে থাকবে আমোদিত। যথেষ্ট অর্থব্যয় হবে।

প্রতিষ্ঠা জীবনে শত্রুতা করে কেউ ক্ষতিসাধনে সমর্থ হবে না। ধর্মভাব শুভ। ভ্রমণযোগ মধ্যম হবে। সন্তানদের উন্নতি হবে বাধার মধ্যে। মাতৃস্থানীয়া কারও স্বাস্থ্য উদ্বেগ বাড়াতে পারে। সঞ্চিত অর্থে হাত পড়তে পারে। আত্মীয় শত্রুর বাজার মন্দা যাবে।


যাদের ভাদ্রে জন্ম তাদের বছরটা কেমন যাবে :

কর্মজীবনে ব্যবসার ক্ষেত্রে বছরটা খুব ভাল নয় আবার পড়ে মার খাওয়ার মতো নয়। তবে কর্মক্ষেত্রে সার্বিক চাপ বাধা আর অস্থিরতা একটা থাকবে। স্বাধীন পেশা বা চাকরি ক্ষেত্রে যারা আছেন তাদের সময়টা কাটবে গতানুগতিক ধারায়। মোটের উপর কর্মক্ষেত্রে সময়টা কাটবে বড্ড চাপের মধ্যে দিয়ে।

আর্থিক ব্যাপারে মানসিক চাপ আর অশান্তি একটা থেকে যাবে। প্রত্যাশিত অর্থাগমে বাধা হবে। আর্থিক যোগাযোগ ও কথাবার্তা হয়ে শেষ পর্যন্ত তা ভেস্তে যাওয়ার সম্ভাবনা প্রবল। মাত্রাতিরিক্ত ব্যয় চাপে অস্থির হয়ে উঠতে পারেন।

দেহ ও মন সারা বছর কম বেশি বিব্রত করবে। স্বাস্থ্যটা ভালো যাবে না। একটা না একটা লেগে থাকবে। বড় কোন ভয় নেই তবে স্বাস্থ্য স্বস্তিও দেবে না নিকট কোনও আত্মীয়দের স্বাস্থ্য তাৎক্ষনিকভাবে উদ্বেগ বাড়তে পারে।

বিদ্যার্থীদের পক্ষে সময়টা অনুকূলে নয়। প্রতিষ্ঠা ক্ষেত্রে শত্রুকে জয় করবে। কোনও আত্মীয়দের মানসিক শান্তি বিঘ্নিত হবে। কোনও অনাত্মীয়ের সহায়তালাভ হবে।

ধর্মভাব শুভ। সদগুরুর আশ্রিত হওয়ার যোগ। এ বছর মাঝে মাঝে কাছাকাছি কোথাও না কোথাও বেড়াতে যাবেন। উটকো ঝামেলা আর ব্যয় বাড়বে অসম্ভব। আত্মীয় প্রীতিতে বাধা।

এ বছর বহু আত্মীয় ও অনাত্মীয়ের বাড়ি নিমন্ত্রিত হবেন। আনন্দিত হবেন তবে যথেষ্ট অর্থ ব্যয়ও হবে নিমন্ত্রণ রক্ষার্থে। শত্রু ভয় নেই। বছরের শেষটা বেশ ভালোই কাটবে।

মাঝে মাঝেই কোনও উৎসাহ বর্ধক সংবাদ মনকে আনন্দিত করবে। বাড়িতে কয়েকবার শুভ কর্মানুষ্ঠানের যোগ। নতুন কোনও পরিচয়ে উপকৃত না হলেও আনন্দিত হবেন। কোনও মাঙ্গলিক কর্মে অর্থদান করে একটা আত্মতৃপ্তি বোধ করতে পারেন। কোনও পরিচিত বা অপরিচিত ব্যক্তি আপনার মাধ্যমে কোনও ভাবে উপকৃত হবেন।

যাদের আশ্বিনে জন্ম তাদের বছরটা কেমন যাবে :

এ বছর ভ্রাতৃস্থানীয় কারও মধ্যে কর্মক্ষেত্রে কমবেশি উন্নতি বা সুযোগ আসবে। অপ্রত্যাশিত যোগাযোগে কর্মক্ষেত্রের কিছু উন্নতি হবে। কোনও নতুন যোগাযোগ উৎসাহিত করবে। কোনও ঝুঁকির কাজে না গিয়ে সাধারণভাবে যেমন চলছে – তেমন ভাবে চলাই ভালো।

আয় ব্যয়ের মাত্রা প্রায় সমান থাকবে। মাঝে মাঝে বেশ ভালো আবার কখনও আর্থিক চাপ অস্বস্তি থাকবে অতিমাত্রায়। তবে অবস্থা যাই হোক না কেন, সারা বছর কাটবে সচ্ছলতায়। অর্থের অভাবটা হবে না।

স্বাস্থ্যের পক্ষে বছরটা অস্বস্তিকর। আঘাত ও কাঁটাছেঁড়া, চোখ ও পেটটা প্রায়ই বড্ড বিব্রত করবে। স্বাস্থ্যের কারণে কিছু অর্থ নষ্টের যোগ। চাণক্যের কথায়, রোগ আর ঋণ পুষে রাখলে বাড়ে ছাড়া কমে না। যখন শরীর নিয়ে যে কষ্টই হোক না কেন, সঙ্গে সঙ্গে তা আরোগ্য লাভের চেষ্টা করা কর্তব্য।

এ বছর আর্থিক চাপ একটা থাকবে তবু তা কাটিয়ে উঠবেন। অধিকাংশ দিনগুলো কাটবে আনন্দের মধ্যে দিয়ে। বাড়িতে একাধিকবার কর্মানুষ্ঠান যেমন বিবাহ পৈতে অন্নপ্রাশন বা গৃহপ্রবেশ ইত্যাদি কোনও না কোনও মাঙ্গলিক কর্মানুষ্ঠান হবে। অপ্রত্যাশিত কিছু অর্থাগমযোগ। কোথাও না কোথাও বেড়াতে যাবে না। কোনও আত্মীয়ের কারণে অর্থব্যয় হবে। বিদ্যার্থীদের বিদ্যায় আশানুরূপ ফললাভে বাধা জন্মাবে। বিদ্যায় মনোসংযগের অভাব থাকবে অতিমাত্রায়।

প্রতিষ্ঠা জীবনে অকারণ শত্রুতার সম্মুখীন হতে পারেন তবে প্রকাশ্যে ও গুপ্তভাবে কেউই ক্ষতি সাধনে সমর্থ হবে না। যাদের দীক্ষা হয়নি, তাদের অনেকেরই সদগুরুর আশ্রয়লাভ হবে। আত্মীয়রা তেমন কাজে আসেনি কখনও, এ বছরও আসবে না। অনাত্মীয়দের সহায়তা লাভটা বরাবর কমবেশি হয়ে আসবে। ইচ্ছা বা অনিচ্ছায় সারা বছর বেশ কয়েকবার দেবালয় ভ্রমণ হবে সেটা কাছের কিংবা দূরের কোথাও।


যাদের কার্তিক মাসে জন্ম তাদের বছরটা কেমন যাবে :

কর্মজীবনে এ বছর ব্যবসায় ক্ষেত্রে অনেকটাই উন্নতি হবে অপ্রত্যাশিত যোগাযোগ বাড়বে কর্মক্ষেত্রে। নতুন কোনও যোগাযোগে উৎসাহিত হবেন। পেশায় যারা আছেন তাদের কর্মজীবনে সম্মানের সঙ্গে অর্থাগমের সুযোগ বাড়বে। চাকরি জীবীদের ছোট্ট কোনও সুযোগ খুশি করতে পারে।

এ বছর নতুন নতুন আর্থিক যোগাযোগে যথেষ্ট উৎসাহিত হবেন। আর্থিক উন্নতি তো হবেই। পুরনো আটকে থাকা টাকা খানিকটা হলেও ছাড় পাবে। গত বছরের তুলনায় অর্থাগমের মাত্রা খানিকটা বাড়বে। অতিরিক্ত ব্যয়ের পরিমাণ অনেকটাই কমবে। অপ্রত্যাশিত কিছু অর্থাগম হবে, যেটা ভাবেননি।

সারা বছর স্বাস্থ্যটা ভালোই যাবে। খুচখাচ সর্দি কাশি জ্বর ছাড়া বড় কোনও রোগ ভোগে পড়ার ভয় নেই তবে হার্টের রোগীদের পক্ষে স্বাস্থ্যের ক্ষেত্রে সময়টা অশুভ সূচক। হঠাৎ হৃদরোগে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা প্রবল।

এ বছর নিজ কিংবা নিকট আত্মীয়ের গৃহে একাধিকবার শুভ কর্মানুষ্ঠান হবে। আপনি নিজেও উপস্থিত থাকবেন। সেই উপলক্ষে বেশ কিছু অর্থব্যয়ও হবে। একাধিকবার সুসংবাদ পাবেন। কর্মপ্রার্থীদের অনেকের কোনও বয়স্ক ব্যক্তির সহায়তা কর্মলাভ সম্ভাবনা প্রবল, সেটা একাধিকবার এবং একাধিক জায়গায়। এ বছর অপ্রত্যাশিতভাবে ছোট হোক বা বড় ভালো ঘটনা কিছু ঘটবে।

এ বছর সাদা বা ঘিয়ে রঙের উপরে কয়েকবার উপহার কিছু পাবেন। খুব দামি না হলেও  কমদামি হবে না। বেশ কয়েকবার কোথাও না কোথাও বেড়াতে যাবেন। দেবদেবী ও মঠ মন্দিরের টান বা আকর্ষণ বেশ খানিকটা বাড়বে। ইচ্ছা অনিচ্ছায় মাঝেমধ্যে সেখানে পৌঁছে যাবেন।

কোনও উচ্চপদস্থ অথবা বয়স্ক কোনও ব্যক্তির সহায়তা লাভ হবে। সেটা অর্থ কিংবা কোনও যোগাযোগ দিয়ে। এবছর বেশ কয়েকবার কোথাও না কোথাও নিমন্ত্রিত হবেন এবং জব্বর খানাদানা হবে।

যাদের অগ্রহায়ণে জন্ম তাদের বছরটা কেমন যাবে :

সারা বছর যে সব কাজগুলো আপনি করবেন তাতে প্রথমে বাধা কিছু হবে, পরে কাজগুলো হবে। হই হই করে হওয়াটা হবে না। একথা যারা পেশা বা ব্যবসায় যারা আছেন উভয়ের ক্ষেত্রেই সমান ভাবে প্রযোজ্য। বাধা মাইনের চাকুরিয়াদের কর্মক্ষেত্রে একটা না একটা অস্বস্তি লেগে থাকবে।

আর্থিক অবস্থার লক্ষণীয় পরিবর্তন কিছু হবে না। গতানুগতিক ধারায় চলবে অর্থ ভাগ্য। মাঝে মধ্যে আর্থিক বিষয়ে উদ্বেগ ও অস্বস্তি মনকে বেশ বিব্রত করে রাখবে তবে সে অবস্থাটাও উতরে যাবে। অপ্রত্যাশিতভাবে কিছু অর্থ নষ্টের সম্ভাবনা রয়েছে। কাউকে বিশ্বাস করে অর্থ না দেওয়াই ভালো।

স্বাস্থ্যের পক্ষে খুব বাজে সময় একটা ছিল সেটা চলে গেছে। এখন থেকে সময়টা দেহ ও মনের পক্ষে ধীরে ধীরে অনেকটাই যাবে স্বস্তির দিকে বড় কোনও রোগ ভোগ ও স্বাস্থ্যের কারণে বড় রকমের অর্থ নষ্টের কোনও কারণ নেই।

টাকা ধার দিলে কিংবা অর্থ বিনিয়োগ করলে ক্ষতির সম্ভাবনা। কোনও ঝুঁকির কাজে যাওয়া মানে অর্থ শ্রাদ্ধ হওয়া। হঠাৎ কারও সঙ্গে বাদানুবাদে জড়িয়ে পড়ে এ বছর অনেকবারই মানসিক শান্তি নষ্ট হবে। শত্রুতা করে কেউ ক্ষতি সাধনে সমর্থ হবে না। আত্মীয় ও বন্ধুদের দিক থেকে লাভ বা ক্ষতি কিছু হবে না।

বিদ্যার্থীদের বিদ্যায় আশানুরূপ উন্নতি বা অবনতি কিছু হবে না। ধর্মের প্রতি কোনও টান বা আকর্ষণ কিছু থাকবে না। দূরপাল্লায় ভ্রমণ যোগ নেই তবে কাছাকাছি টুকটাক কোথাও বেড়াতে যাবে। অদীক্ষিতদের দীক্ষার সম্ভাবনা কম।

বয়স্কদের স্বাস্থ্যের কারণে হঠাৎ করে এক গাদা অর্থ ব্যয়ের যোগ। নতুন কিছু আসবাব কেনার কারণে খরচ বাড়তে পারে। প্রতিষ্ঠা জীবনে শত্রু দ্বারা ক্ষতির ভয় নেই। কোনও ফালতু বন্ধুর পাল্লায় পড়ে সম্মান হানির সম্ভাবনা। মোটের উপর বছরটা কাটবে একটা না একটা অস্বস্তির মধ্য দিয়ে। বড় ক্ষতির ভয় নেই তবে স্বস্তির অভাবটা থেকে যাবে।


যাদের পৌষে জন্ম তাদের বছরটা কেমন যাবে :

এ বছর কর্মজীবন থাকবে উদ্বেগ ও অস্থিরতায় ভরা। পেশা বা ব্যবসায় কোনও ঝুঁকি নিয়ে অর্থ বিনিয়োগ কিংবা ওই জাতীয় কোনও কাজ না করাই শ্রেয়। ব্যবসায় ক্ষেত্র চলবে উত্থান পতনের মধ্যে দিয়। সমস্ত কাজে বাধা একটা থেকে যাবে। অপ্রত্যাশিত অর্থ ক্ষতির সম্ভাবনা। পেশায় নিযুক্ত ও চাকুরিয়াদের বছরটা স্বস্তিতে কাটবে না।

আর্থিক বিষয়ে মানসিক উদ্বেগ ও অশান্তি একটা থেকে যাবে। প্রত্যাশিত অর্থাগমে বাধা জন্মাবে। পরিশ্রমানুসারে আর্থিক উন্নতির আশা নেই। অসম্ভব ব্যয় বাড়বে। কোনও না কোনও ভাবে অর্থ নষ্ট বা ক্ষতির সম্ভাবনা প্রবল। নতুন অর্থ বিনিয়োগের ক্ষেত্রে সময়টা অনুকূলে নয়। আর্থিক অবস্থার উল্লেখযোগ্য কোনও পরিবর্তনের আশা নেই।

বর্তমানে স্বাস্থ্যের যেমন ধীরে ধীরে খানিকটা অবনতি হবে তেমন নানান কারণে মানসিক শান্তিও বছরের অধিকাংশ সময় বিঘ্নিত হবে। উটকো ঝামেলা আর ব্যয় বাড়বে অসম্ভব। প্রত্যাশিত অর্থাগমে বড্ড বাধা থাকবে।

বছরটা কাটবে নানা অস্বস্তি আর অশান্তির মধ্যে দিয়ে। বিবাহিত জীবনে মতবিরোধজনিত অশান্তি মানসিক শান্তি মাঝে মধ্যেই বিঘ্নিত হবে। কোনও কাজটাই সুন্দরভাবে হবে না। অপ্রত্যাশিতভাবে টাকা নষ্ট হবে। পরে তৃতীয় কোনও ব্যক্তির অনুপ্রবেশ অশান্তির মাত্রা বাড়াবে। যারা পড়াশুনা নিয়ে আছেন তাদের মানসিক অস্থিরতা বাড়বে অতিমাত্রায়।

ধর্মের প্রতি মনের কোনও আকর্ষণ থাকবে না। দীক্ষার্থীদের দীক্ষা লাভে বাধা জন্মাবে। কারও স্বাস্থ্য বা অন্য যে কোনও কারণে এ বছর ব্যয় বাড়বে জলের ধারায়। ঋণে জড়াতে পারেন। প্রথম থেকে সতর্ক থাকুন। শত্রু থাকবে তবে ক্ষতি কিছু হবে না। আর্থিক ব্যাপারে এখন বিশ্বাস করে টাকা পয়সা না দেওয়াই ভালো।

একান্ত দীক্ষা নিতে হলে গুরু নির্বাচনে সতর্কতা প্রয়োজন তা না হলে জালি গুরুর পাল্লায় পড়ে দীক্ষা নিয়ে জন্মটা তো যাবে, পরের জন্মটাও।

যাদের মাঘে জন্ম তাদের বছরটা কেমন যাবে :

কর্মজীবনে ব্যবসায়ীদের বছরটা কাটবে ভালো মন্দ মিশিয়ে। কখনও শুভ যোগাযোগে উৎসাহিত আবার কখনও হতাশ হবেন। এরকম ভাবে কেটে যাবে বছরটা। এক কথায় বছরটা না খুব মিঠে না খুব কড়া। পেশায় নিযুক্তদের ক্ষেত্রে একই কথা বলা চলে। তবে উভয়ের ক্ষেত্রে শুভ যোগাযোগ মাঝে মধ্যে বেশ ভালোর দিকে নাড়া দিয়ে যাবে।

অর্থভাগ্যের কমবেশি উন্নতি হবে। আর্থিক ব্যাপারে যোগাযোগ বাড়বে। কোনও বয়স্ক ব্যক্তির সহায়তায় অর্থাগম হবে। এককালীন বেশ কিছু অর্থলাভের সম্ভাবনা। যে কোনও ভাবে অর্থ লাভের সুযোগ বৃদ্ধির যোগ। হুট করে মোটা অর্থ ব্যয়ের যোগ।

স্বাস্থ্যটা ভালো যাবে না। প্রায়ই বড্ড বিব্রত করবে। অপ্রত্যাশিতভাবে কিছু অর্থ নষ্ট বা ব্যয় হবে। মাঝে মাঝে কিছু অর্থাগম হবে কোনও কাজের কারণে তবে তা মনের মতো নয়। ব্যয় চাপ এতটুকুও কমবে না। ঝুঁকির কাজে অর্থ বিনিয়োগ বোকামি করা হবে। যেমন চলছে তেমন চলতে দিন।

যাদের দীক্ষা হয়নি তাদের অনেকের দীক্ষা লাভ হবে। কোথাও বেড়াতে যাবেন সেটা পাহাড় কিংবা দেবালয়ে। এবছর একাধিকবার ভ্রমণ হবে।

প্রতিষ্ঠা জীবনে কোনও বিশেষ সুযোগে অর্থ বা অন্য কোনও ভাবে লাভবান হবেন। কোনও উপহার বা এমন কিছু পাবেন যেটা আপনার ক্ষেত্রে বেশ কাজে আসবে। এমন কোনও সুযোগ আসবে যেটা আপনার ক্ষেত্রে অত্যন্ত ফলদায়ক।

এ বছর নিজ গৃহে এবং আত্মীয়ের গৃহে একাধিকবার শুভ কর্মানুষ্ঠান হবে। নিজ গৃহে আত্মীয় সমাগম বাড়বে। স্বাস্থ্য মাঝে মাঝে মনের আমেজ নষ্ট করব। কোনও কারণে বছরে বেশ কয়েকবার মানসিক উদ্বেগ বাড়বে যা কাজের ক্ষেত্রে মনকে বিচলিত করে রাখবে তবে সেটা তেমন মারাত্মক কিছু নয়।

দেব দেবীর উপর বিশ্বাস আছে তবে মন্দির বা দেবালয় বা আশ্রমে মাঝে মাঝে যাওয়া বা দু-চার মিনিট বসায় অরুচি আছে। এ বছর ওই অরুচিটা অন্যান্য সময়ের মতো থেকে যাবে। কোনও নিকট আত্মীয় কিংবা বন্ধুর ব্যবহার আপনার মনকে ভরিয়ে তুলবে। ঝামেলা এড়িয়ে চলুন।


যাদের ফাগুনে জন্ম তাদের বছরটা কেমন যাবে :

এ বছর কর্মজীবনে পেশা বা ব্যবসায় মাঝে মধ্যে বেশ উৎসাহ বোধ করবেন আবার কখনও নিরুৎসাহিত হবেন। তবে কর্মক্ষেত্রের সার্বিক অবস্থা থাকবে সুন্দর ও সচল। পেশায় যারা আছেন তাদের কর্মক্ষেত্রে আগের তুলনায় যোগাযোগ বেশ খানিকটা বাড়বে। চাকুরিয়াদের মনের অস্বস্তি বাড়বে বড্ড বেশি।

যথেষ্ট অর্থাগম যেমন হবে তেমন জলের মতো অর্থ ব্যয়ও হবে। নিয়মিত আয়ের তুলনায় যে কোনও ভাবে আয় অনেকটাই বাড়বে। কোনও নতুন যোগাযোগে আর্থিক উন্নতি হবে। গত বছরের তুলনায় এ বছর আর্থিক উন্নতির পথ অনেক সুগম হবে।

স্বাস্থ্যটা প্রায়ই বড্ড ভোগাবে। দেহ ও মনের কোনও স্বস্তি থাকবে না। একটা না একটা শারীরিক অস্বস্তি দেহ ও মনকে বড্ড বিব্রত করে রাখবে। স্বাস্থ্যের কারণে বেশ কিছু অর্থ নষ্ট হবে। স্বাস্থ্য সতর্কতা প্রয়োজন।

আপনি চেষ্টা করেন সময়ের কাজ সময়ে করতে, কথা দিলে কথা রক্ষা করতে, এ বছর আপনার নিয়ম নীতির বিরুদ্ধ ভাবাপন্ন মহিলা পুরুষ জুটবে বেশি, ফলে স্বাভাবিক কারণে পুরনো ও নতুন পরিচিতদের অধিকাংশের সঙ্গেই প্রীতির সম্পর্ক কারও সঙ্গে সাময়িক, কারও সঙ্গে চিরকালীন ছিন্ন হতে পারে। এ বছর নিয়ম নীতিহীন মানুষের সান্নিধ্যে আসবেন বেশি।

বছরে বেশ কয়েকবার কাছাকাছি ও দূরপাল্লায় ভ্রমণে যাবেন তবে দেহ বা মনের কারণে এক আধবার যাওয়ায় বাধা পড়তে পারে। তবে দেবালয়ে ভ্রমণ মাঝে মধ্যেই অব্যাহত থাকবে। এবছর অনেক ধর্মকামীরই দীক্ষালাভ হবে তবে মানুষের মনকে ক্রাইম করা ক্রিমিনাল ধর্মবিরোধী গুরুকে এড়িয়ে চলুন যারা এক ঘরে বসিয়ে একাধিক ধর্মার্থীকে একসঙ্গে দীক্ষা দেয়। দীক্ষা নেওয়ার আগে বিষয়টা জেনে নিয়ে পরে দীক্ষা নেওয়া কর্তব্য।

কোনও ভালো মানুষের সঙ্গলাভে নতুন কিছু জানতে ও শিখতে পারবেন। সম্মান ও যশের ক্ষেত্র প্রসারিত হবে। আগে যাওয়া হয়নি এমন জায়গা বা দেবালয়ের পেয়ে সেখানে যেতে পারেন। এ বছর নানান ধরণের বিভিন্ন দ্রব্য ও উপহার প্রাপ্তির সংখ্যা বাড়বে যেগুলি সত্যি একটু দামি। ভাল ও বেশি দামের জিনিস দেওয়ার লোকের সংখ্যা এখন নেহাতই কম। উদাহরণে বলি, যে সব পেন ব্যবহারের অনুপযুক্ত সেই সব পেন আমি প্রতিবছর গাদাগাদা উপহার পাই।

যাদের চৈত্রে জন্ম তাদের বছরটা কেমন যাবে :

সারাবছর ব্যবসায়ীদের কর্মক্ষেত্র চলবে একটা না একটা অস্বস্তির মধ্যে দিয়ে। একাধিকবার কোনও ভালো সুযোগ হাতছাড়া হওয়ার সম্ভাবনা। কর্মক্ষেত্রে কোনও অশান্তি মনকে অস্থির করে তুলতে পারে। মোটের উপর কর্মক্ষেত্রের সমস্ত ব্যাপারটা চলবে গুঁতিয়ে গুঁতিয়ে। পেশায় নিযুক্তদের ব্যাপারটা একই রকম। চাকুরিয়াদের কর্মক্ষেত্রে সময়টা জল ছাড়া কই-এর মতো।

বছরটা আয় ব্যয়ের সমতা রক্ষা করেই চলবে। সাধারণ নিয়মেই অর্থাগম হবে। অর্থভাগ্যের লক্ষণীয় পরিবর্তন কিছু হবে না। অর্থাগমের সুযোগ কিছু এসে তা নষ্ট হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা। পারিবারিক নানা কারণে অর্থ ব্যয় বাড়বে তবে আর্থিক ক্ষতির ভয় নেই।

স্বাস্থ্যের পক্ষে সময়টা চলবে সাধারণ নিয়মে। সাধারণ নিয়ম বলতে মাঝে মাঝে বেশ ভালো আবার কখনও বেশ কয়েকদিন দেহের আমেজটা নষ্ট হয়ে থাকবে। তবে স্বাস্থ্য নিয়ে বড় কোনও সমস্যার সময় নয় এখন তবে হবে হার্টের রুগীদের পক্ষে সময়টা উদ্বেগ সূচক।

এবছর সামান্য ছোট্ট কোনও ঘটনা বড় আকার ধারণ করে বাড়ির সকলের শান্তি নষ্টের কারণ হবে। সারা বছর আত্মীয় সমাগমে বিরক্ত হবেন। ব্যয় বাড়বে হু হু করে। অনিচ্ছা সত্ত্বেও দূরপাল্লার কোথাও বেড়াতে যেতে পারে। প্রতিষ্ঠা জীবনে শত্রু দ্বারা ক্ষতির ভয়।

নিজ কিংবা খুব নিকট কোনও আত্মীয়ের গৃহে একাধিকবার শুভ কর্মানুষ্ঠান হবে। সেই অনুষ্ঠানে আপনি নিমন্ত্রিত হবেন। দেবালয় ভ্রমণ হবে। বিদ্যার্থীদের শিক্ষায় অমনোযোগ বাড়বে। অত্যন্ত পরিচিতদের সঙ্গে মতবিরোধজনিত অশান্তিতে মনের স্বস্তি প্রায়ই নষ্ট হবে। ঝামেলার পরিস্থিতিটা সব সময় এড়িয়ে চলুন।

কোনও শুভ কর্মানুষ্ঠানের যোগাযোগ শেষ বেলায় ভেস্তে যাওয়ার সম্ভাবনা। পাওনা টাকা আটকে যাওয়া কিংবা দেরিতে পাওয়ার যোগ। সারা বছর শত্রুতা করে কেউ ক্ষতিসাধনে সমর্থ হবে না।

(চিত্রণ – সংযুক্তা)



About Sibsankar Bharati

স্বাধীন পেশায় লেখক জ্যোতিষী। ১৯৫১ সালে কোলকাতায় জন্ম। কোলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাণিজ্যে স্নাতক। একুশ বছর বয়েস থেকে বিভিন্ন দৈনিক, সাপ্তাহিক পাক্ষিক ও মাসিক পত্রিকায় স্থান পেয়েছে জ্যোতিষের প্রশ্নোত্তর বিভাগ, ছোট গল্প, রম্যরচনা, প্রবন্ধ, ভিন্নস্বাদের ফিচার। আনন্দবাজার পত্রিকা, সানন্দা, আনন্দলোক, বর্তমান, সাপ্তাহিক বর্তমান, সুখী গৃহকোণ, সকালবেলা সাপ্তাহিকী, নবকল্লোল, শুকতারা, দ্য টাইমস অফ ইন্ডিয়ার নিবেদন 'আমার সময়' সহ অসংখ্য পত্রিকায় স্থান পেয়েছে অজস্র ভ্রমণকাহিনি, গবেষণাধর্মী মনোজ্ঞ রচনা।

Check Also

Diwali

দীপাবলি উৎসব কি ও কেন পালন করা হয় – শিবশংকর ভারতী

ঈশ্বরীয় আবেশে ভরা দীপান্বিতা। এ নামের মধ্যে রয়েছে ইতিহাস ও পুরাণের অভিবন্দনা। উচ্ছ্বাস নেই, আছে হৃদয় থেকে উৎসারিত অফুরন্ত আনন্দের প্রজ্বলিত আলোকমালা।

3 comments

  1. আপনি বিশ্বাস না করতেই পারেন কিন্তু অন্যকে অপমান করার কোন অধিকার আপনার নেই এটা মনে রাখবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.