Horoscope

ধনু রাশির ১৪২৮ বাংলা বছরটা কেমন কাটবে – শিবশংকর ভারতী

১৪২৮ সালের ১ বৈশাখ থেকে চৈত্র সংক্রান্তি পর্যন্ত ধনু রাশির মোটামুটি বছরটা কেমন যাবে তার সম্ভাব্য ফলাফল লিখতে চেষ্টা করেছি।

এই রাশিতে দেবগুরু বৃহস্পতির ভাব তেজোধর্মী। এই রাশির জাতক জাতিকাদের মধ্যে মূর্ত হয়ে উঠেছে দ্ব্যত্মক ভাব। একইসঙ্গে রজো ও সত্ত্বগুণের সমাহার।

এদের ভিতর প্রচ্ছন্ন থাকে অহংকার। অন্যায়ের প্রতিবাদ করতে এরা মুখর। এরা চট করে কাউকে বিশ্বাস করতে পারে না। সন্দেহের ভাবটা থাকে ঘরে বাইরে।

যোগ্যতার তুলায় এরা উপার্জন করে বেশি। এই রাশির মধ্যে দয়া মায়া সহিষ্ণুতাও অনেক বেশি। আত্ম প্রতিষ্ঠা আসে নিজ চেষ্টায়। অন্যের উপর এদের ভরসা কম।

নিজের কাজ নিজেই করতে বেশি ভালোবাসে। জাতকের মধ্যে স্ত্রৈণের সংখ্যা কম। অসদুপায়ে কিছু অর্থ জীবনের কোনও না কোনও সময়ে এসে যায়।

বিবাহের পরবর্তীকালে ভাগ্যের প্রকৃত বিকাশ ঘটে। বিবাহিতজীবনে স্ত্রীর সঙ্গে প্রায়ই মতের মিলের অভাব দেখা দেয়।

এখানে যে ফলাফল লেখা হল তা একেবারেই অনুমানভিত্তিক। বিষয়টা একটু খোলসা করে বলা যাক। রাশি এক হলেও নক্ষত্র ভেদে এক এক জাতক-জাতিকার মানসিক গঠন, চিন্তাভাবনা, চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য, জীবনপ্রবাহ এক একরকম হয়ে থাকে; এর সঙ্গে থাকে জন্মকালীন রাশিচক্রে শুভাশুভ গ্রহের অবস্থান। রাশি এক হলেও নক্ষত্র ইত্যাদি ভেদে ফলাফলের তারতম্যটাই স্বাভাবিক। অত্যন্ত সূক্ষ্ম বিচার করে ফলাফল লেখা সম্ভব হয় না। প্রত্যেকটা রাশির কোনও একটা নক্ষত্রকে ধরে নিয়ে গড়ে একটা অনুমানভিত্তিক শুভাশুভ ফল লেখা হয়। ফলে কারও ফল মেলে দারুণভাবে, কারও কিছু কিছু, কারও বা একেবারেই নয়। যাইহোক, এখন দেখা যাক ধনু রাশির বছরটা কেমন কাটবে।

গত বছরের তুলনায় এবছরটা অনেকটাই স্বস্তি দেবে। ব্যবসায়ীদের কর্ম ও আর্থিক কিছুটা হলেও উন্নতি হবে। স্বাস্থ্য না খুব মিঠে, না খুব কড়া। আত্মীয় ও বন্ধুরা তেমন উপকারে আসবে না। আত্মীয়দের সহায়তায় লাভ হবে বহুবার। শিল্পী ও পেশায় যারা আছেন তাদের পক্ষে সময়টা ধীরে ধীরে শুভত্বের দিকে। চাকরিরতদের সময়টা চলবে গতানুগতিক। কর্মপ্রার্থীদের সময়টা আশাপ্রদ। অযথা ব্যয় বিব্রত করবে। কাছাকাছি কোথাও বেড়াতে যাবেন। মাঝে মধ্যে কথার খেলাপ হবে। প্রেমিক প্রেমিকাদের অভিমানজনিত অশান্তিতে প্রায়ই মনের শান্তি নষ্ট হবে। ধনুলগ্নের স্বাস্থ্য প্রায়ই বড্ড বিব্রত করবে।

এখানে যে প্রতিকারগুলি রাশি অনুযায়ী করা হল তা শুধুমাত্র এক বছরের জন্য। প্রতিকারগুলি আমার মনগড়া কোনও কথা নয়। বিভিন্ন সময়ে ভারতের নানা প্রান্তে ভ্রমণকালীন পথচলতি সাধুসঙ্গের সময় লোক-কল্যাণে সাধুদের বলা প্রতিকারগুলিই এখানে করা হল।

কি করলে একটু ভালো থাকবেন : প্রতিদিন নারায়ণ শিলায় একটা বোঁটা সমেত তুলসী, শিলা না থাকলে নারায়ণের ফটোয় শ্রীচরণে একটা তুলসী স্পর্শ করে খেয়ে নিতে পারেন অথবা রেখেও দিতে পারেন। এতে সংসার, প্রতিষ্ঠা, কর্ম থেকে সার্বিক অবস্থার ধীরে ধীরে অস্বস্তি তো কাটবেই, অশেষ কল্যাণও হবে।

কি রঙের পোশাক পরবেন : পোশাকের রং হলুদ, গোলাপি, হালকা লাল রাখতে চেষ্টা করুন। সবদিক দিয়ে অনেক স্বস্তিতে থাকবেন। বাড়ি ঘরের রং হলুদের উপর ভরসা করলে অর্থ সম্মান দুইই আসবে।

সব কথা মিলবে, এমনটা ভাববার কোনও কারণ নেই। এখানে রাশির ওপর ভিত্তি করে ভাগ্যফল নিয়ে যা লেখা তা অভিজ্ঞতায় দেখা একটা আভাস মাত্র। এটাই বাস্তব সত্য বলে ধরে নিয়ে চলাটা কোনও কাজের কথা নয়, চলার কারণ আছে বলেও মনে হয় না।

Show More

One Comment

  1. বাংলা ট্রানশ্লেশন দেখে অজ্ঞান হবার অবস্থা হয়েছে। তারপর রাশিফল সানসাইন মতে না মুনসাইন মতে সেটা উল্লেখ করুন। সবাই তো আপনাদের মতো জ্ঞানের সাগর না। নিজের ভাষাটা ঠিক করে প্রয়োগ হচ্ছে কিনা দেখবেন না? মানুষের সাথে ফাজলামি হচ্ছে।
    করোনা যে এই পরিমান ক্ষতি করবে জানতেন? এখনো লিখছেন অর্থ প্রাপ্তি,শুভ অনুষ্ঠান, অতিথি ইত্যাদি। আমার একজন প্রিয় মানুষ ধনু রাশির। ১/৩ মাইনে পাচ্ছে ।অথচ জ্যোতিষ মতে তার এবছর প্রভূত উন্নতি হবার কথা। যত্তসব! আমার রাশিফল বলুন তো ঠিক করে ঠিক বাংলায়। যন্ত্রের ওপর ছেড়ে দিয়ে বসে আছেন। আমার জন্ম তারিখ ১৮/৪/৬৩। কোনমতে বলছেন সেটা জানাবেন।

Back to top button